পৌরাণিক তিনটি উপন্যাস (শেষ পর্ব): অল্পে গল্পে ‘আমাদের মহাভারত’

মূল মহাভারতে কথায়-কথায় এক হাজার বছর, দশ হাজার বছর বলা হয়। তা বড্ড বেশি বাড়াবাড়ি। লেখক একে বাস্তবিক বর্ণনায় এনেছেন শূন্য কমিয়ে।

article

পৌরাণিক তিনটি উপন্যাস (দ্বিতীয় পর্ব): উপন্যাসের পাতায় রাধা-কৃষ্ণের প্রেম

প্রথম দেখাতেই রাধার প্রেমে মাতোয়ারা হয়ে যায় কৃষ্ণ। রাধার প্রেম আমূল বদলে দেয় কৃষ্ণকে। দুঃসাহসিক রাখালের খোলস ছেড়ে কৃষ্ণ হয়ে উঠে একজন চঞ্চল প্রেমিক। তারপর প্রেম নিবেদন, প্রত্যাখান, সমর্পণ, প্রণয়— যেসব নিয়ে তৈরি হয় কিংবদন্তি রাধা-কৃষ্ণের প্রেম কাহিনী।

article

পৌরাণিক তিনটি উপন্যাস (প্রথম পর্ব): ‘শকুন্তলা’ উপাখ্যান থেকে উপন্যাসে

বিচলিত দেবতারা স্বর্গ থেকে মেনকা নামের অপরূপ সুন্দরী এক অপ্সরাকে পাঠায় বিশ্বামিত্রের কাছে, বিশ্বামিত্রকে তপস্যা থেকে নিবৃত করাই ছিল তার উদ্দেশ্য। মেনকার স্বর্গীয় সৌন্দর্যে বিশ্বামিত্র প্রলুব্ধ হন।

article

গাসসান কানাফানি: ফিলিস্তিন বিপ্লবের প্রথম কলমযোদ্ধা

কিন্তু তিন বছর পেরিয়ে গেলেও ১৯৬৭ সালের যুদ্ধের আবহ তখনো ধুয়ে যায়নি। রাস্তার মোড়ে মোড়ে দাঁড়িয়ে লেবানিজ আর্মি। ঠিকই দাঁড়িয়ে তাদের সুসজ্জিত ট্যাংক বহর।

article

কোলেটেরাল বিউটি: মৃত্যুতেও সৌন্দর্য খুঁজতে শেখায় যা

পুরো মুভি জুড়ে হাওয়ার্ড একবারও তার মৃত মেয়ের নাম মুখে আনতে পারেননি। শেষদিকে এসে তিনি ছল ছল চোখে প্রথমবার মেয়ের নামটি একবার মুখে আনে। হাওয়ার্ডের সেই চোখের পানি দিয়েই যেন দীর্ঘদিন জমিয়ে রাখা সব দুঃখ, সব ব্যথা, সব আর্তনাদ নিমেষেই ঝরে পড়েছে।

article

দ্য সং অভ স্প্যারোস: আধুনিকতা আর মানবিকতার দ্বন্দ্বে জিতবে কে?

সিনেমাটি দেখে দর্শকের মনে হতে পারে, এটি অনেকটা আধুনিকতা বিরোধী। কিন্তু আসলে কি তা-ই? এক্ষেত্রে স্বয়ং পরিচালকের  ভাষ্যটি এরকম,

“সিনেমাটি দ্বারা আমি আধুনিকতার বিরোধিতা করিনি। মানুষের কল্যাণের জন্য আধুনিকতা অপরিহার্য। কিন্তু মানুষ প্রায়ই এই আধুনিকতার কাছে পরাজিত হয়। বন্ধুত্ব, আন্তরিকতা, ভালোবাসা, নৈতিকতার মতো মৌলিক মানবিক গুণগুলো তার কাছে গৌণ হয়ে পড়ে। এর বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে সিনেমাটির মাধ্যমে আমি এই বার্তাটি দিতে চেয়েছি যে, দিনশেষে অবশ্যই আমাদেরকে আমাদের মৌলিক মানবিক গুণাবলির কাছেই ফিরে যেতে হবে।”

article

বাযমান্দেহ (১৯৯৬): ইরানী সিনেমায় ফিলিস্তিনের শোকগাথা

স্রোতের বিপরীতে দাঁড়িয়ে যে কয়েকটি সিনেমা ফিলিস্তিনিদের দুর্ভোগের চিত্র যথাযথভাবে তুলে ধরতে সক্ষম হয়েছে, তার মধ্যে বাযমান্দেহ (দ্য সারভাইভার) নামক ইরানী সিনেমাটি অন্যতম। 

article

প্রদোষে প্রাকৃতজন: ফিরে দেখা আটশো বছর আগের বাংলা

কেমন ছিল আটশো বছর পূর্বের বাংলা? কেমন ছিল তখনকার সমাজ? গ্রামগুলোই বা কেমন ছিল? আটশো বছর আগে এদেশের মানুষ কীভাবে জীবিকা নির্বাহ করত? কী ছিল তাদের পেশা? কীরূপ ছিল তাদের ধর্মাচরণ? সম্পর্কের স্বরূপগুলো কেমন ছিল? কেমন ছিল এদেশের নদ-নদী, প্রকৃতি?

article

End of Articles

No More Articles to Load