মেরি টিউডর (১ম পর্ব): যেভাবে সিংহাসনে এলেন ব্লাডি মেরি

সেবার প্রথম ইংল্যান্ডের রাজসিংহাসনে কোনো নারী অভিষিক্ত হলো, সেবার প্রথম কোনো রানী হাতে নিলো ইংরেজদের সুবিশাল রাজ্যের ন্যায়দণ্ডের ভার। মেরি টিউডর ছিলেন সেই ঐতিহাসিক ব্যক্তিত্ব, যাকে ইতিহাস মনে রাখলো ‘ব্লাডি মেরি’ হিসেবে। আসুন জেনে নিই ব্লাডি মেরির জীবনের প্রথম অধ্যায় ও তার সিংহাসনে আসার গল্প।

article

কুমারী রানী এলিজাবেথ (২য় পর্ব) : কেমন ছিলো কুমারী রানীর হাতে প্রিয় ইংল্যান্ড?

এলিজাবেথের ব্যাপারে একথা ঐতিহাসিকরা বলে থাকেন যে- মোহিনী এই কুমারী নারী অনেক গুরুত্বপূর্ণ ও ক্ষমতাবান যুবকের সাথে নিজের ঘনিষ্ঠতা রেখেছিলেন, নিজের স্বার্থে তাদের প্রভাবকে ব্যবহারও করেছেন বিভিন্ন সময়। জীবনযাত্রার জাঁকজমক আর আড়ম্বরতায় আচ্ছন্ন করতেন অভিজাত ব্যক্তি থেকে সাধারণ মানুষ সকলকেই। তবু এ ব্যাপারে সন্দেহ নেই যে, এ ছিলো তার শীতল চিন্তাপ্রসূত রাজনীতিরই এক অস্ত্র। বোধহয় এজন্যই অন্যে রানীর প্রেমে পড়ুক বা রানী নিজেই অন্যের প্রেমে পড়ুন, যা-ই ঘটে থাকুক, সেটিকে তার ভাবমূর্তি ও একচ্ছত্র ক্ষমতার প্রতিবন্ধকতা হতে দেননি কখনোই।

article

কুমারী রানী এলিজাবেথ (১ম পর্ব) : সিংহাসনে এলো স্বীকৃতিহীন এক রাজকুমারী

১৫৫৮ সালের নভেম্বরে যখন এলিজাবেথ শান্ত গ্রাম্য পরিবেশে বাগানে হাঁটছিলেন, তখন দু’জন দূত দ্রুত ছুটে এসে তাকে জানায় যে, তার বোন আর নেই এবং এখন তিনিই ইংল্যান্ডের রানী।

১৫ জানুয়ারি, ১৫৫৯। লন্ডনের ওয়েস্টমিনিস্টার অ্যাবেতে এক বিশাল জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে রানী হিসাবে অভিষিক্ত হন এলিজাবেথ। নতুন রানীর আগমনে সমগ্র ইংল্যান্ড আনন্দে উদ্বেলিত হয়ে উঠলো। সাধারণ মানুষের সামনে নতুন দিনের নতুন আশার প্রতীক হয়ে এলেন কুমারী রানী প্রথম এলিজাবেথ। এই আনন্দ একদিকে মেরীর বিদায়ের আনন্দ, অন্যদিকে স্বাধীনচেতা এলিজাবেথের আগমনের আনন্দ।

article

ওয়াইড সারগাসো সী: স্থবির মৃতপ্রায় জীবনের গল্প

বৈষম্যের রকমফের হিসাবে লেখিকা দেখিয়েছেন, কীভাবে মিশ্র বর্ণ ও আর্থিক কারণে সামাজিকভাবে নিগৃহীত ও বিচ্ছিন্ন হয় অ্যান্টোইনেটের পরিবার। দেখিয়েছেন, দাসপ্রথা যেমন পাল্টে দিয়েছে হাজার হাজার কালো মানুষের জীবন, তেমনি এর বিলুপ্তিও চড়া মূল্য নিয়েছে সাধারণ দাস ও মালিক উভয়ের কাছ থেকে। কিন্তু এতসবের মধ্যেও একজন স্বজাতীয় নারী হিসাবে লেখিকা দেখিয়েছেন কীভাবে নানা সামাজিক নিয়ম-কানুন, সামাজিক ভণ্ড অনুশাসন মেয়েদের জীবনকে দলিত করছে চিরকাল ধরে।

article

দ্য শ্যাডো লাইনস: সীমান্তে বিভক্ত মানবতা

বইটি মানুষের জটিল মনস্তত্ত্ব ও সময়ের ক্রান্তিলগ্ন উভয়ের ওপরেই লেখকের চিন্তাশীলতার আলো ফেলা সাহিত্যের এক অনন্য নিদর্শন। কিভাবে মানুষের দ্বারা সময় আক্রান্ত হয় আর কিভাবে সময় মানুষকে বদলে দিতে পারে চিরতরে সে মহাগল্পের সাথেই পরিচয় করায় অমিতাভ ঘোষের ‘ দ্যা শ্যাডো লাইনস’।

article

উইলিয়াম গোল্ডিং: ভিন্নধর্মী এক লেখকের গল্প

মূলত গোল্ডিং মানব প্রকৃতি সম্পর্কে পাঠককে এই সত্যই সর্বদা বোঝাতে চেয়েছেন যে- “যেভাবে মধু বানানোই মৌমাছির স্বভাব, সেভাবে পাপের দিকে ঝোঁকাই মানুষের সহজাত”। সমস্ত সৎ গুণাবলি, মূল্যবোধ, সততা, শৃঙ্খলা, আত্মনিয়ন্ত্রণ- সবই মানুষকে শিক্ষা দিতে হয়, কিন্তু না শেখালেও সে চুরি, রাহাজানি, হত্যা, মিথ্যা এসব জেনে নেয় নিজের প্রবৃত্তি থেকেই। এটাই তো মানবের ছলে-বলে লুকাতে চেষ্টা করা চিরায়ত সত্য।

article

দ্য স্কারলেট লেটার : সমাজ ও ধর্মের বেড়াজালে জড়ানো এক পঙ্কিল জীবনের গল্প

আমেরিকান সাহিত্যের এক মূল্যবান রত্ন হয়ে ‘দ্য স্কারলেট লেটার’ ১৮৫০ সালে প্রকাশিত হয় এবং প্রথম প্রকাশকালের তিনদিনেই বিক্রি হয় প্রায় আড়াই হাজার কপি। পরবর্তী ছয়মাসের মধ্যে পর পর বইটির দু’টি সংস্করণ বের হয় এবং সেই থেকে এখন পর্যন্ত বইটির প্রকাশনা কখনো থেমে থাকেনি। হেনরি জেমসের মতো অনেক সমালোচক বইটির প্রশংসায় এভাবে বলেছেন যে, “অবশেষে অনেকদিন পর একজন আমেরিকান লেখক এমন এই লেখা নিয়ে আসতে সক্ষম হলেন, যা ইংল্যান্ডে প্রকাশিত সর্বোত্তম বইয়ের তালিকায় উঠে আসতে পারে।” রোমান্টিক বই হিসেবে হর্থোনের এই বইকে আখ্যায়িত করা যায়, আখ্যা দেওয়া যায় ঐতিহাসিক দিক থেকেও। বইটির মনস্তাত্ত্বিক ব্যাখ্যাও যেমন জায়গা করে নিতে পারে পাঠকের কাছে, তেমনি এর গঠনগত নিপুণতা আর প্রতীকি রূপায়ণ মনোযোগ আকর্ষণ করেছে সাহিত্যবোদ্ধাদের।

article

লর্ড অফ দ্য ফ্লাইজ: সভ্যতার আড়ালে মানুষের চিরায়ত বর্বরতার আখ্যান

ভালো বা গুণবাচক যা কিছু আছে তা তাকে শেখাতে হচ্ছে, জানাতে হচ্ছে কিন্তু ঈর্ষা করতে, মিথ্যা বলতে বা খেলনা কেড়ে নিতে তাকে কাউকে শেখাতে হয় না। এই ঘটনা মোটামুটি সকল মানবশিশুর ক্ষেত্রেই এক। তবে কি বলা যায় মানুষ প্রকৃতিগত ও প্রবৃত্তিগতভাবেই মন্দের দিকে আগ্রহী, খারাপের দিকে ঝোঁকে?

article

ওজন কমাতে জেনে নিন খাবারের সঠিক সময়

যারা ওজন কমাতে চায় এবং সকালে ভারী নাস্তা গ্রহণ করে তারা প্রায় আড়াই গুণ বেশি দ্রুত মেদ ঝরিয়ে ফেলে তাদের থেকে যারা এ ব্যাপারে অাগ্রহী কিন্তু সকালে কম ও রাতে বেশি খায়। এমনকি এই অনুপাতটা একই থাকে যদিও তারা উভয়ই শেষমেষ দৈনিক সমপরিমাণ খাবার খায়।

article

ডেথ অফ এ সেলসম্যান : পুঁজিবাদী পৃথিবীতে মধ্যবিত্তের মৃত্যু

আমেরিকান মধ্যবিত্ত জীবনের গল্প বলা এই বইটি এমন এক সময়কার সাহিত্যের অংশ যখন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষ করে দেশটির অর্থনীতি নতুন নতুন প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখি হচ্ছে। আগের গ্রাম ও কৃষিনির্ভর অর্থনীতি হয়ে উঠছে শহরমুখী ও শিল্পকারখানানির্ভর। তীব্র পুঁজিবাদ সমাজে মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে, ধনীরা যতো দ্রুত আরো ধনী হচ্ছে ততো দ্রুতই নেমে যাচ্ছে মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্তের জীবনমান।

article

হরেক দেশের হরেক রকম বিরিয়ানির কথা

সারা পৃথিবীতে ভোজনরসিক মানুষের কাছে যে খাবারের নামটি আকর্ষণের শীর্ষে থাকে, সেটা হলো বিরিয়ানি। আর এদেশের অধিকাংশ মানুষের কাছেই বিরিয়ানি হলো সবচেয়ে প্রিয় ও সুস্বাদুতম খাবার। ভারতীয় উপমহাদেশে বিরিয়ানি ব্যাপক প্রসার ও আকাশচুম্বী জনপ্রিয়তা লাভ করে মূলত মোঘল সম্রাটদের শাসনামলে। আসুন জেনে নিই বিরিয়ানির জগতের সবচেয়ে বিখ্যাত ও জনপ্রিয় বিভিন্ন দেশের চারটি বিরিয়ানি সম্পর্কে ও সেগুলোর রেসিপি।

article

ওয়েটিং ফর গডো: নিরন্তর অপেক্ষা ও একজন গডোর সাথে মিলিত হবার নাটকীয় প্রয়াস

যেন এক ধার্মিক প্রাণ অনন্ত সময় ধরে মুক্তির সন্ধান চাচ্ছে, যেন কোন ধর্মভীরু ঈশ্বরের সন্ধান চেয়ে বসে আছে জনম জনমের পথ- জীবন যেন এমনই এক প্রতীক্ষার গল্প। এই প্রতীক্ষার গল্প নিয়েই স্যামুয়েল ব্যাকেটের সাজানো যুগান্তকারী নাটক ‘ ওয়েটিং ফর গডো’।

article

End of Articles

No More Articles to Load