নিজেকে হারিয়ে খুঁজছেন? এই নয়টি সমাধান আপনার জন্যই

মনে রাখবেন, এ জগতে কোনো কিছুই অসম্ভব নয় বা অসম্ভব বলতে কিছুই নেই। শুধু প্রয়োজন আপনার নিজের চিন্তাধারা আর মানসিকতার পরিবর্তন। চিন্তা করলে দেখবেন, আপনি প্রতিনিয়ত পাল্টে ফেলছেন আপনার বেশভূষা, পোশাক-পরিচ্ছদ, আপনার থাকার জায়গা। এমনকি আপনার সঙ্গী অথবা সঙ্গিনীও বদলে যেতে পারে। কিন্তু বাইরের বিষয়গুলো যতই পাল্টে ফেলুন না কেন, ভিতর থেকে আপনার নিজের মানসিক বিকলাঙ্গতা যদি সরাতে না পারেন, তাহলে বারবার পাহাড় সমান বাধার সম্মুখীন আপনাকে হতেই হবে; আই রিপিট- বারবার!

আসুন আপনার সত্ত্বাকে একটু খুঁজে ফিরি…

Source: timshurr.com

ভেবে দেখেছেন কি কখনও, আপনার জীবনে সাফল্যের পথে বাধা হয়ে দাঁড়িয়ে আছে আপনারই আরেক সত্ত্বা? এই বাধাকে ভেদ করতে হলে আপনাকে ঝেড়ে ফেলতে হবে নিজের সব দুর্বলতাগুলোকে। শুধু আপনি কেন, যে কারো জন্য এটি নিঃসন্দেহে খুবই কঠিন কাজ। কিন্তু আপনি কি জানেন, এই পৃথিবীর বেশিরভাগ মানুষ তাদের জীবন পার করছে তাদের সামর্থ্য, সক্ষমতা সম্পর্কে বিন্দুমাত্র ধারণা না নিয়ে? সিংহভাগ মানুষই জীবনে তাদের নিজেদের শক্তি আর যোগ্যতা কাজে লাগানোর সুযোগ পায় না। ধরুন, আপনি এক বিপদসংকুল পথে যাত্রা শুরু করেছেন। আপনি যখন আপনার ভয়ের জালগুলো একের পর এক ছিঁড়ে এগিয়ে চলেছেন, আপনি কি অনুভব করেন নিজের ভিতরের অদ্ভুত এক তাড়না? হ্যাঁ, তাড়নাটা ভয়কে জয় করার, নিজেকে ফিরে পাবার।

অন্যের সফলতার কাঠগড়ায় নিজেকে দাঁড় করান

অন্য মানুষের সফলতার গল্প শুনতে কেমন লাগে আপনার? মুগ্ধ বিস্ময়ে কেবল প্রশংসাবাক্যই উচ্চারণ করে যান, তাই তো? মনে রাখবেন, তাঁদের সফলতার পিছনে শ্রম দেয়ার ও লেগে থাকার একটা সুস্পষ্ট ইতিহাস থাকে। জেনে রাখুন, সাফল্যের বিচারে আজ যারা আপনার-আমার আইকন, তারা প্রত্যেকে দিনের পর দিন দাঁতে দাঁত চেপে শ্রম দিয়েছেন নিজেদের স্বপ্নের পিছনে। নিজের সামর্থ্যের উপরে যদি আপনি বিশ্বাস হারিয়ে ফেলেন, সেই দায় কিন্তু আপনার উপরেই বর্তায়। অন্য লোকেদের সমর্থন পেতে গিয়ে তাদের দরজায় ধর্না দিলে ফলাফলটা কি হবে আন্দাজ করুন। হ্যাঁ, ঠিক ধরেছেন। আপনি এক পর্যায়ে আত্মবিশ্বাস হারিয়ে ফেলবেন। অন্যের কথায় প্রভাবিত হয়ে হয়তো আপনি সরে আসবেন আপনার স্বপ্নের রাস্তা থেকে।

তাহলে কি করা দরকার আপনার? হ্যাঁ, খুবই ভাবনার বিষয়

Source: ibdnewstoday.com

আবার সেই পুরনো বুলিই আওড়াতে হবে- “নিজেকে গড়ে তুলুন আরও দক্ষ, আরও উদ্ভাবনী ক্ষমতাসম্পন্ন একজন মানুষ হিসাবে।” একজন বিজয়ীর প্রধান বৈশিষ্ট্য কি জানেন? তার থাকে সাফল্যের জন্য তীব্র ক্ষুধা, আর হাল না ছেড়ে বারবার ব্যর্থতার মুখোমুখি হওয়ার অকুতোভয় সাহস! আসলে ছোট্ট কথায় এর ব্যাখ্যা দেওয়া যায় না। তবে কেউ যখন সামনে লক্ষ্য স্থির রেখে সেই লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য সংগ্রাম করে যায়, একমাত্র সে-ই এটা অনুভব করে তার সমস্ত সত্ত্বা দিয়ে।

নিজেকে খুঁজুন আরও প্রকটভাবে

Source: managedmethods.com

নিজের বিশালত্বকে আবিষ্কার করুন! ভিতরে-বাইরে কোনোভাবেই উৎসাহ হারিয়ে ফেলবেন না। নিজের ইচ্ছাশক্তিতে বলীয়ান হয়ে চিন্তা করুন- সাফল্য ধরা দেবেই। কোনো বাধাই আপনার গতিকে রুখতে পারবে না! মানুষের ইচ্ছাশক্তির চেয়ে শক্তিশালী আর কিছু নেই। আপনার ইচ্ছাশক্তিই আপনাকে করে তুলবে অপ্রতিরোধ্য!

সময় কতটুক বাকী আছে জানেন তো

Source: Kharkov.all.biz

আপনার হাতে আর কতটা সময় বাকি আছে? সময়ের হিসাব রেখেছেন কখনো? যে বিপুল সম্ভাবনা এই মহাবিশ্বে আমরা নিয়ে এসেছি, আমাদের অধিকাংশই তার সদ্বব্যবহার করছি না। আপনার সেই মূল্যবান সময়গুলো নষ্ট করছেন না তো? সফলতার স্বাদ পেতে হলে আপনাকে তৎপর হতেই হবে আগের থেকে আরও বেশি।

আপনার আবেগ, আপনার চালিকাশক্তি

Source: alamy.com

নিজস্ব আবেগ আর উচ্ছলতা হোক আপনার জীবনে চলার পথের ছায়াসঙ্গী। জীবনের পথে বারবার হোঁচট খেতে হবে; এটাই নিয়ম। কিন্তু আপনার উদ্দেশ্য থাকবে নিজেকে সামনের দিকে এগিয়ে নেয়া; কখনোই পিছু হটা নয়। অনেক ক্ষেত্রে কঠোর কিছু মূহুর্তে আবেগকে সাথে নিয়ে না যাওয়াই উত্তম।

নিজেকে নিলামে তোলা

Source: blog.jobprofile.com

নিজেকে নিলামে তুলবো, এ আবার কেমন কথা! হ্যাঁ, আপনি তা পারবেন, যদি আপনি নিজেকেই নিজে ইচ্ছাশক্তি ধার দিয়ে যান প্রতিনিয়ত। খেয়াল করলে দেখবেন, প্রতিদিন আপনি নিজেকেই নিলামে তুলছেন। আর এর সাথে বদলে যাচ্ছে আপনার কাজের ক্ষেত্র, কাজের ধরণ। এই যে নিজেকে নিলামে তোলা, কিসের ভিত্তিতে সেটা কি জানেন? আপনার যোগ্যতা, আপনার দক্ষতাই এর আসল ভিত্তি। এটিই আপনাকে তিল তিল করে এগিয়ে নিয়ে যাবে আপনার লক্ষ্যপূরণের পথে।

নিজের বিচারক হয়ে যান নিজেই

Source: istockphoto.com

নিজের গুণগুলোকে খুঁজে বের করুন। হয়তো আপনি ভালো ছবি আঁকতে পারেন, কিংবা ভালো গান করেন অথবা গুছিয়ে কথা বলতে পারেন। আবার আপনি ঘর সাজাতে অসম্ভব পটু। অথবা আড্ডা জমিয়ে দিতে আপনার জুড়ি নেই। এর কোনোটাই যদি না হয় তাহলে খেয়াল করে দেখুন, নিশ্চয়ই আপনি একজন ভালো মানুষ, কারো ক্ষতি করেন না। নিজের গুণগুলোকে পুঙ্খানুপুঙ্খরুপে মূল্যায়ন করুন। নিজের প্রশংসা করুন। যা করতে ভালবাসেন তা যদি বাস্তবতার আড়ালে হারিয়ে যাওয়ার পথ ধরে, তাহলে সে পথ বন্ধ করুন। ভালোবাসার বিষয়টাকে নিয়ে চর্চা করুন, নিয়মিত অল্প সময়ের জন্য হলেও। নিশ্চিতভাবে আপনার আত্মবিশ্বাস অবশ্যই বাড়বে।

ভুল স্বীকার করুন নিজের কাছে

আপনি যত দক্ষ মানুষই হোন না কেন, ভুল আপনার হবেই হবে। এর কোনো গ্যারান্টি আজও কেউ দিতে পারে নি। আবার হয়তো হঠাৎ রেগে যাওয়া, মনোযোগ দিয়ে কাজ করতে না পারা ইত্যাদি সমস্যা আপনার রয়েছে। হ্যাঁ, স্বীকার করে নিন এগুলো আপনার মধ্যেই আছে। স্বীকার করা মানে ছোট হওয়া নয়। বরং যেই সময় থেকে আপনি জেনে গেলেন আপনার মধ্যে কী কী ত্রুটি, তখন থেকে নিজেকে গড়তে আপনি খুঁজে পাবেন সঠিক পথ। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে, নিজেকে আরো ভালোভাবে জানা এবং কীভাবে আরো ভালোভাবে নিজেকে তৈরি করা যায় সেটা খোঁজা আর নিজেই সেটা ঠিক করে ফেলা। আর কেউ না থাকুক, আপনি তো আছেন নিজের সঙ্গে। সফল আপনি হবেনই হবেন।

ব্যক্তিত্বের দৃঢ়তাকে তুলে ধরুন

Source: fotolia.com

ব্যক্তিত্বের দৃঢ়তা কমিয়ে দেয় শত্রু, বাড়িয়ে দেয় জনপ্রিয়তা। সফল হতে হলে নিজের ওপর বিশ্বাস লাগবেই লাগবে। ভীরু মন নিয়ে কে কবে কোন কঠিন পথ পাড়ি দিতে পেরেছে আমার জানা নেই! সবাই হাত ছেড়ে যেতে পারে, বন্ধুত্ব চিরতরে শেষ হয়ে যেতে পারে, কাছের মানুষ সারাজীবন আপনার কাছে না-ও থাকতে পারে। আর এ জন্যই জীবনের এই পথে নিজের নিরন্তর বন্ধু আপনি নিজেই। আপনি যদি নিজের ওপর বিশ্বাস না রাখতে পারেন, তাহলে এগিয়ে যাওয়া হবে খুবই কঠিন। পড়াশোনা, ক্যারিয়ার- সবখানে আপনার সবচেয়ে বড় শক্তি নিজের ওপর আস্থা, আত্মবিশ্বাস। আর এগুলোই হচ্ছে আপনার ব্যক্তিত্বের পরিচায়ক।

অতএব, এখনই সময়। জেগে উঠুন বন্ধু! নিজেই খুঁজে নিন নিজের ভিতরের শক্তিকে। হৃদয়ের গভীর থেকে আপনার সত্যিকারের সত্ত্বাকে বের করে আনুন। ভেঙে চুরমার করে দিন আপনার পথ আগলে দাঁড়ানো বাধার প্রাচীর! একটু মন দিয়ে শোনার চেষ্টা করুন, একটি পরিচিত কণ্ঠ প্রতিদিন সমস্বরে চিৎকার করছে আপনার কানে, “যা-ই হোক না কেন, আমি এগিয়ে চলেছি! এই দিনটা শুধুই আমার! আমাকে থামানোর ক্ষমতা কারো নেই ! তুমি হয়তো দেখতে পারছো না; কিন্তু আমি আসছি ! আমি আসছি!

 

Related Articles