এই লেখাটি লিখেছেন একজন কন্ট্রিবিউটর।চাইলে আপনিও লিখতে পারেন আমাদের কন্ট্রিবিউটর প্ল্যাটফর্মে।

প্রিয়তমা তামান্না,
ভালোবাসা নিও। তোমার কাজলকালো ওই দু'চোখ যেভাবে আমাকে হারিয়ে যেতে বাধ্য করে....

আশির দশকের উপন্যাসের মতো প্রেমপত্র লেখার দিন কি আর আছে আজ?

হুমায়ূন আহমেদ বহুব্রীহি উপন্যাসে বলেছিলেন, প্রেমপত্র নাকি সেকেলে হয়ে গেছে। বিশাল কলেবরের প্রেমপত্রের জায়গায় শুধুমাত্র "আমি তোমাকে ভালোবাসি"- এটুকুই যথেষ্ট ছিল লেখক হুমায়ূনের কাছে। সে দিনও গত হয়ে গেছে। "আমি তোমাকে ভালোবাসি" কথাটা বড্ড বেশি বেমানান মনে হয় আজকাল। আজকালকার হিমু-রূপারা তাদের ভার্চুয়াল কথোপকথন তাই "ভালোবাসি" শব্দেই সীমাবদ্ধ রাখে। সভ্যতা যত উন্নত হচ্ছে, মানুষের সময় যেন দিন দিন কমে যাচ্ছে। আর সময়ের সাথে বদলে যাচ্ছে মানুষের ভাব প্রকাশের ভাষা। বদলে যাচ্ছে না বলে বোধ হয়, 'সংক্ষিপ্ত হয়ে যাচ্ছে' বলাটা বেশি ভালো হবে।

ভালোবাসা'র সংক্ষিপ্ত প্রকাশ; Image Source: Emojipedia

 

ভাষার প্রকাশটা দিন দিন যত কম যাচ্ছে, ভাবের প্রকাশটা ততই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে। তাই প্রিয়জনের সাথে কাটানো ভার্চুয়াল সময়গুলোতে আবেগের গাঢ় প্রকাশটা বেশ জরুরি। শহুরে যান্ত্রিক জীবনে আবেগের আরেকটু গাঢ় প্রকাশগুলোই তো সম্পর্কগুলো টিকিয়ে রাখছে দিনের পর দিন। আর আজকাল 'ভালোবাসি' শব্দটার একটু গাঢ় প্রকাশের দায়িত্বটা একটা 'Love' ইমোজির! প্রকৃতপক্ষে যে ভার্চুয়াল সত্ত্বা অকাতরে নিজেকে বিলিয়ে দিয়ে প্রিয়জনকে আরো কাছাকছি রাখছে, সে হলো বেচারা ইমোজি। তাহলে তার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে আজকে একটু জেনে নেওয়া যাক ভার্চুয়াল জগতে আবেগ প্রকাশের অবিচ্ছেদ্য দুটি অংশ ইমোজি আর ইমোটিকন সম্পর্কে!

শুরুটা ইমোটিকন দিয়েই করা যাক। Emotion icon শব্দ দুটো পাশাপাশি যুক্ত হয়ে Emoticon শব্দটির জন্ম হয়েছে। ইংরেজি অক্ষর, বিরামচিহ্ন ও সংখ্যা দিয়ে তৈরি করা যে চিহ্নটি আবেগ প্রকাশ করতে সাহায্য করে, সেটিকেই আমরা ইমোটিকন বলে জানি। হ্যাঁ, ঠিক ধরেছেন। আদিকালের নোকিয়া ১১০০-তে টাইপ করা :-) , :-^) চিহ্নগুলোই আসলে ইমোটিকন! পিটসবার্গের কার্নেগী মেলন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক স্কট ফাহলমান ১৯৮২ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর তার কম্পিউটার বিজ্ঞানের বুলেটিন বোর্ডে একটি বার্তা পাঠান। সেখানে তিনি হাস্যরসাত্মক বিষয়গুলো :-), আর হাস্যরসাত্মক নয় এমন বিষয়গুলো :-( চিহ্ন দিয়ে সূচিত করতে বলেন। এটিই আসলে ছিল প্রথম ইমোটিকনের ব্যবহার। এখনও এই দুটি ইমোটিকন আমরা নিয়মিতই ব্যবহার করে থাকি।

ফাহলম্যানের পাঠানো সেই বার্তা; Image Source: Twitter

এবার আশা যাক ইমোজি বিষয়ে। দুটি জাপানি শব্দ EMoji নিয়ে Emoji শব্দটি গঠিত। E অর্থ হলো ছবি, আর Moji অর্থ হলো ক্যারেকটার বা চিহ্ন। তাহলে ইমোজি অর্থ হলো চিত্রলিপি। ভার্চুয়াল জগতে আজকাল ইমোজি ছাড়া ভাব প্রকাশ যেন প্রায় অসম্ভব। জাপানি কোম্পানি ডোকোমো ১৯৯০ এর দশকে তথ্যকে বিভিন্ন চিহ্নের মাধ্যমে আরো আকর্ষণীয়ভাবে উপস্থাপন করার উদ্যোগ নেয়। সে সময় তাদের দলে ছিলেন বিখ্যাত জাপানি নকশাকার শিগেতাকা কুরিতা। তিনিই ১৯৯৯ সালে প্রথম ইমোজি তৈরি করেন।

প্রকৃতপক্ষে কোম্পানিটি চাইছিল তথ্যকে বিভিন্ন ভিজ্যুয়ালের মাধ্যমে প্রকাশ করতে। যেমন, আজকের আবহাওয়া মেঘলা বুঝাতে 'মেঘলা' শব্দের পরিবর্তে  🌦️, আবহাওয়া রৌদ্রোজ্জ্বল বোঝাতে ☀️; আবার যাত্রার তথ্য বোঝানোর জন্য 🚖 (ট্যাক্সি) বা 🚊(ট্রেন) অথবা 🚌 (বাস)- এ ধরনের চিহ্ন ব্যবহারের মাধ্যমে তথ্যটিকে আকর্ষণীয় করে তোলা। কুরীতা প্রাথমিকভাবে ১৭৬টি ইমোজি তৈরি করেন। সেই সময় জাপানে তার তৈরি করা ইমোজিগুলো ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করে। জাপানে এগুলো ব্যাপক জনপ্রিয়তা পাওয়ায় অন্যান্য মোবাইল প্রতিষ্ঠানও ডোকোমোর তৈরি করা এসব ইমোজি ব্যবহার করতে শুরু করে।

এমনকি জাপানের বাইরেও অনেক মোবাইল কোম্পানি কুরিতার তৈরি করা এসব ইমো ব্যবহার করার জন্য আগ্রহী হয়ে ওঠে। বলা যায়, এরপর থেকেই ইমোজি ব্যবহারের বিশ্বায়ন শুরু হয়ে যায়। ২০১১ সালে অ্যাপল তাদের ইঞ্জিয়ার টিম নিযুক্ত করে ইমোজি কিবোর্ড তৈরির জন্য। তাদের তৈরি করা ইমোজি দিয়ে অ্যাপল তাদের অপারেটিং সিস্টেম আইওএস-এ অফিসিয়াল ইমোজি কিবোর্ড যুক্ত করে। তবে বর্তমানে সবচেয়ে জনপ্রিয় অপারেটিং সিস্টেম অ্যান্ড্রয়েডে অবশ্য এরও দু'বছর পর যুক্ত হয় ইমোজি।

কুরিতার তৈরি করা ১৭৬টি ইমোজি এখন নিউ ইয়র্কের মিউজিয়াম অভ মডার্ন আর্টে সংরক্ষিত আছে। আজকের ভার্চুয়াল কিবোর্ডে শত শত ইমোর যে বৈচিত্র্য আমরা দেখি, তার শুরুটা কিন্তু হয়েছিল এই ১৭৬টি ইমোজি থেকেই। ২০১০ সালে ইউনিকোড আনুষ্ঠানিকভাবে ইমোজি যোগ করার পর থেকে ইমোজির বিবর্তন তুঙ্গে উঠতে শুরু করে। ১০ বছরের বিবর্তন ও উন্নতির পর কুরিতার তৈরি করা ১৭৬টি ইমোজি এখন প্রায় ১৮০০-এর অধিক সংখ্যায় পরিণত হয়েছে।

কুরিতার তৈরি করা ১৭৬টি ইমোজি; Image Source: Emojipedia

ইমোর রাজনীতিকরণ

ভার্চুয়াল জগতের এত ছোট্ট একটা বিষয়েরও যে রাজনীতিকরণ হতে পারে, সেটা হয়তো অনেকেরই অজানা। ইমোজির রাজনীতিকরণ শুরু হয় ২০১৫ সালে ইউনিকোড আপডেট ইমোজি প্রকাশ করলে। ইমোজির ফ্ল্যাগ সেকশনে দেখা যায় ইসরায়েলের জাতীয় পতাকা থাকলেও সেখানে ফিলিস্তিনের জাতীয় পতাকা রাখা হয়নি। ফিলিস্তিন ও ইসরায়েল রাষ্ট্রের সংঘাত বিশ্ব রাজনীতির গুরুত্বপূর্ণ এক অধ্যায়। যদিও পরে ইউনিকোড ফ্ল্যাগ সেকশনে ফিলিস্তিনের জাতীয় পতাকা যোগ করে।

যেহেতু এই ইমোজি বিশ্বব্যাপী ব্যবহৃত হয়, তাই এর সুদূরপ্রসারী প্রভাব কল্পনা করতে খুব একটা সমস্যা হওয়ার কথা নয়। স্পর্শকাতর ও বিতর্কিত এই ইস্যু নিয়ে ইউনিকোডের এমন আচরণ সত্যিই ভাবতে বাধ্য করে। এছাড়াও খাবারের ইমোজির মধ্যে পাশ্চাত্য, ইউরোপ, এশিয়ার বিখ্যাত খাবার অন্তর্ভুক্ত থাকলেও আফ্রিকান কোনো মেন্যু সেখানে রাখা হয়নি। যদিও ইঞ্জেরা ও ফুফুর মতো বিখ্যাত আফ্রিকান খাবার বিশ্বব্যাপী বেশ জনপ্রিয়। আফ্রিকান অঞ্চলের প্রতিনিধিত্বকারী কোনো খাবার না থাকায় সমালোচনার সৃষ্টি হয় এবং বর্ণবাদ সংক্রান্ত বিতর্ক উস্কানি পায়।

বিভিন্ন খাবারের ইমোজি; Image Source: Emojipedia

ব্যক্তিগত ও সামাজিক জীবনে ইমোজির প্রভাব

লিঙ্গের ধারণায় ইমোজির প্রভাব সুদূরপ্রসারী। ২০১৫ সালে ইউনিকোড পিপল সেকশনে বেশ কিছু ইমোজি যোগ করে, যেমন- চাকরিজীবী নারী, ভারোত্তোলনকারী নারী, সমলিঙ্গের বাবা, সমলিঙ্গের মা, দুই বাবার পরিবার, দুই মায়ের পরিবার ইত্যাদি। লিঙ্গের বৈষম্য দূরীকরণে এসব ইমো বেশ ভালো প্রভাব রাখছে। পুরো পৃথিবীর কাছে ইমোগুলো একটা শক্ত বার্তা হিসেবে কাজ করেছে। এছাড়াও পিপল সেকশনে ইমোগুলোর আলাদা আলাদা গায়ের রং যুক্ত করা হয়। আগে শুধুমাত্র হলুদ রঙের মানুষের ইমোজি ছিল। কিন্তু ২০১৫ এর আপডেটের পর সেখানে শ্বেতাঙ্গ, মিশ্রবর্ণ, কৃষ্ণাঙ্গসহ আরো কিছু গায়ের বর্ণ যুক্ত করা হয়। বর্ণবাদ দূরীকরণে এসকল ইমোর প্রভাব বেশ গুরুত্বপূর্ণ বিবেচিত হচ্ছে। এছাড়াও হিজাব পরিহিত নারীর ইমোজি ধর্মীয় রীতি-নীতির প্রতি সম্মান প্রদর্শনের একটা বড় উদাহরণ ছিল।

বিভিন্ন গাত্রবর্ণের মানুষ; Image Source: Emojipedia

ইমোজি কিন্তু আর শুধুমাত্র ভাষার সহায়ক নেই। এখন পর্যন্ত অনুমোদিত ইমোজির সংখ্যা ১৮০০-এর বেশি। কোনো ভাবের প্রকাশ ঘটানোর জন্যে এই ইমোগুলো নিজেই যথেষ্ট। মজার বিষয় হলো, যেহেতু ইমোজি ব্যবহার করে খুব সহজভাবে নিজের মনের ভাব প্রকাশ করা সম্ভব, তাই ইমোজিকে পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গায় স্বতন্ত্র ভাষা হিসেবে স্বীকৃতি দাবি উঠেছে। মনের ভাব প্রকাশের জন্য ইমোর ব্যবহার আমাদের জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে পড়েছে, তাই সেই দিন হয়তো খুব বেশি দূরে নেই, যখন ইমো একটি স্বতন্ত্র ভাষা হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করবে।

সবার শেষে একটি বিষয় জানিয়ে রাখি। চাইলে আপনিও কিন্তু ইউনিকোডে নিজস্ব আইডিয়ার একটি ইমো যোগ করতে পারবেন। এর জন্য ইমোটির নমুনা এবং মানুষের জীবনে এর গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব সম্পর্কে ইউনিকোডকে জানাতে হবে। যদি আপনার সরবরাহকৃত ইমোজিটির গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব থাকে, তাহলে যাচাই-বাছাই শেষে ইউনিকোড তাদের ইমোজি তালিকায় সেই ইমোটি যোগ করে দেবে। নিচে ইমো সাবমিশনের লিঙ্ক দিয়ে দেওয়া হয়েছে। তো আর দেরি কেন? চলুন, আজই একটা নতুন ইমোজি তৈরি করে ফেলা যাক!

This is a Bangla article. This is about the evolution of emoticon and emojis, that are a very important part of our virtual life at present.

Featured Image: YouTube

References:

1. The Origin Of The Word ‘Emoji’
2. MoMA Highlights: 375 Works from The Museum of Modern Art
3. Evolving Emojis: Designing for the New Face of Messaging
4. The WIRED Guide to Emoji