দিন-রাতের অনেকটা সময় তো অন্তর্জালের দুনিয়ায় কাটানো হয় আপনার। কোন বিষয়গুলো নিয়ে বেশি সময় কাটে? গোটা বিশ্বের খবরাখবর? খেলাধুলা কিংবা বিনোদন জগত? রাজনীতি কিংবা ইতিহাস? কেবল কাজের জিনিস নিয়েই পড়ে থাকেন, নাকি কিছু হাঁসিকান্নার খোঁজও করেন? আরো জরুরি প্রশ্ন, মানুষের অলিগলিতেই ঘোরা হয় নাকি পশুপ্রাণীদের দর্শনও করেন মাঝেসাঝে? কুকুরছানার আদরকাড়া ছবি দেখে মন ভালো হয়? কিংবা বৃষ্টিস্নাত ব্যাঙ দেখে? বা পাখির ছানার উড়ে বেড়ানো?

পশুপ্রাণীদের নিয়ে সবচেয়ে ভালো ব্যাপারটা হলো তারা খুব খাঁটি রূপের হয়। তাদের চেহারা বা আচরণ, সবটাই স্বতঃস্ফূর্ত, প্রাকৃতিক, নির্ভেজাল। তারা আপনাকে তা-ই দেখাবে যা সত্যিকার অর্থেই তাদের স্বরূপ। আপনার মন ভোলাতে মুখোশ পরে না এরা। তাদের সহজাত স্বভাব আর ভঙ্গিমায় যদি আপনার মন গলে, তাহলেই উত্তম।

এই ছবির গল্পে আপনারা দেখতে যাচ্ছেন তাদেরই কিছু মুহূর্ত। নিঃসন্দেহে এগুলো আপনাকে নিখাদ আনন্দ দেবে। একটু সময়ের জন্য হলেও হাঁসবেন আপনি। প্রাণীদের উচ্ছ্বাস, রাগ ও খুনসুটির দারুণ সব ছবির পসরা সাজানো হয়েছে এখানে। এ পসরায় আপনাকে স্বাগতম।

প্রাণের বন্ধু। কুকুর আর বিড়ালের শত্রুতা তো সাধারণ ব্যাপার। তবে বন্ধুত্বও কিন্তু খুব অবাক করা কিছু নয়। ছোটবেলা থেকে একসাথে বেড়ে উঠতে গিয়ে গলায় গলায় ভাব জমে যেতে পারে কুকুর-বিড়াল জুটিতে; Source: Loop

হাতি ও মানুষের ভালোবাসা; Source: National Geographic

চিন্তিত চাহনি! জলাশয়ের গা ডুবিয়ে গরম কমানো বেশ প্রিয় কাজ বনের আতঙ্ক বাঘ মহারাজার। প্রাপ্তবয়স্ক হবার পর জীবনের বেশিরভাগ সময় বাঘ একা একা ঘুরে বেড়াতেই পছন্দ করে, সঙ্গী বা সঙ্গিনীর সাহচর্য অবশ্য কাম্য ব্যাপার; Source: African Safari

মা এবং অন্যরকম দেখতে ছানারা। এদের ব্যাপারে জানেন কিছু? কোন জাতের মাংস খেতে কেমন হয়, ডিম কেমন দেয় এসব বাদে? একটা মুরগি স্বপ্নও দেখে মানুষের মতোই! ঘুমের ভেতর তাদের আরইএম অর্থাৎ র‍্যাপিড আই মুভমেন্ট হয়। হয়তো তখন তারা কোনো খোলা প্রান্তরের কথা চিন্তা করে যেখানে বাধাহীন ঘুরে বেড়াতে পারবে মনের সুখে। Source: Earth Porm

ঘুমের সময় ছবি তুলতে কেন আসো বাপু? Source: australia.com

পান্ডা মানেই যে জীবন বাঁশ খাওয়ার। কথাটা ঠাট্টা করেই বলা হচ্ছে ভাবছেন? পান্ডার বাঁশ ভক্ষণের মিমগুলো চোখে ভাসছে তো? তবে জেনে নিন, একটি পান্ডার খাদ্যতালিকার ৯৯ ভাগই বাঁশে পরিপূর্ণ! শুধু তা-ই নয়, জায়ান্ট পান্ডা তার জীবনের প্রায় ৫৫ ভাগটুকুই কাটিয়ে দেয় বাঁশ সংগ্রহ, প্রস্তুত করা এবং খাওয়ার কাজে। বাঁশ মোটেও ঠাট্টার বস্তু নয়। বোকা দেখতে এই প্রাণীগুলো কিন্তু ভীষণ মায়াকাড়া; Source: wbur.org

কত হাসির খবর বলে যাই! Source: animalpicturesociety.com

মেদভূড়ি কী যে করি! গরিলাকে তো ভালোই চেনা আছে। মুভিতেও এই চরিত্রের আনাগোনা কম হয়নি। এই বিশালদেহী প্রাণীগুলো স্বভাবে কিন্তু ভীষণ লাজুক। নিরীহ এবং শান্ত জীবনযাপনেই তারা আগ্রহী। এমনকি অন্য প্রাণী দ্বারা আক্রান্ত হলেও ঝামেলা এড়িয়ে যেতে চায় গরিলারা। কয়টা প্রাণী হয় এমন? ইশারা ভাষাতে বিশেষ পারদর্শী হয় এরা। আপনার করা নতুন কোনো ইশারা বুঝে নিতে আগ্রহের কমতি হবে না গরিলাদের; Source: 22 Words

একটু আরাম করে বসি বাপু; Source: Awesomelycute

আমি কি ছবিতে আছি? Source: Bored Panda

হ্যালো ক্যামেরা! ঘোড়া, সেই আজব প্রাণী যে কিনা দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ঘুমায়। তবে আপনার অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে ঘোড়া শুয়েও ঘুমায়, তবে সেটা স্বল্প সময়ের জন্য। নির্দিষ্ট ছোট জাতের ঘোড়াদের পনি বলা হয়; Source: fuk.co.uk

কী যে বলেন না ভাই! Source: Awesomelycute

চল ব্যাটা বাইরে ঘুরতে যাই! শ্বেত ভালুক, যাদের আরেক নাম পোলার বিয়ার। দেখা মেলে বরফের দেশে। তুষারশুভ্র বরফের মাঝে সাদাটে বিশালাকার ভালুক খেলে বেড়ায়, বরফে গড়াগড়ি দিয়ে তারা নিজেদের পরিষ্কারও করে বটে। সাধারণত কোনো শত্রু প্রাণী নেই এদের, ফলে নির্বিঘ্ন জীবন কাটাতে পারে এক্ষেত্রে। যখন তারা শিকার করে না, দিনের ২০ ঘন্টা সময়ই বিশ্রাম নিয়ে পার করে দেয়; Source: lifebuzz.com

দেখে চলবেন, আমি ছোট কিন্তু। আপনার জরুরি এবং ফেলনা, কিংবা শখের, সব রকমের কাগজ কেটে উজার করে দেয়া ধারালো দাঁতের ইঁদুর মহাশয়ও কিন্তু অতি সামাজিক প্রাণী। গোষ্ঠীবদ্ধ হয়ে থাকে তারা একে অপরকে সাহায্য করে এবং খেলাধুলাও করে। কাজেই পরেরবার ইঁদুর পাকড়াও করলে মারার আগে ভেবে দেখবেন, হয়তো তার বন্ধুটা অপেক্ষায় আছে একসাথে খেলার; Source: Mooshme

এই দেখ, মানুষগুলো কেমন উল্টো হয়ে আছে! একদম অন্ধকারে নিজের খাবার খুঁজে নেয়া লক্ষ্মী প্রাণী বাদুড়। মশারোধী হিসেবে একে ঘরে রাখা গেলে মন্দ হতো না। কারণ ঘন্টায় ১,২০০ এর উপর মশা সাবাড় করে দেয়ার ক্ষমতা রয়েছে বাদুড়ের; Source: Wonderopolis

জানেন আপা, আজকে না আপনার ভাই আমাকে ঘুরতে নিয়ে যাচ্ছে! উভয়চর প্রাণী ব্যাঙ পানি পান করে তার ত্বকের দ্বারা শোষণের মাধ্যমে।তার রঙ বৈচিত্র্য বেশ নজরকাড়া ব্যাপার, হরেক রঙের ব্যাঙ আছে প্রাণিজগতে; Source: reddit.com

আমরা কি আরো একটু খেলতে পারি? খেলতে ভালোবাসে খুব জলের আদুরে প্রাণীটি। দারুণ বুদ্ধিমানও বটে। আর তাই মানুষের সাথে বন্ধুত্ব হতে পারে সহজেই। ডলফিনের কথা হচ্ছে। তবে, ডলফিনের কিছু সংখ্যক শত্রুর মাঝে আছে এই মানুষও। দূষণ, শিকার এসব দিনে দিনে ডলফিনের ভবিষ্যতকেও অনিশ্চিত করে দিচ্ছে; Source: Dolphins Plus

সে চলে ধীরে; Source: Reptiles and Amphibians of Iowa

অলস দুপুর যায় গড়িয়ে! কুটকুট করে খেয়েই যাচ্ছে প্রাণীটি, এই খাবার লুকিয়েও রাখে সে, কিন্তু তার ২৫ ভাগ খাবারই চুরি হয়ে যেতে পারে। ছোট্ট মনে এত কষ্ট কেমন করে সইতে পারে কাঠবিড়ালীরা? শীতের সময়ে নিজেকে উষ্ণ রাখতে খানিকটা মোটা হবার প্রবণতাও আছে তাদের। মজার বিষয় বটে! Source: jagoanpaper.blogspot.com

ঐখানে হচ্ছে টা কী? Source: medium.com

উৎসব চলছে! Source: Northern Golden Retrievers

বড়সড় ভালোবাসা; Source: nbcnewyork.com

মিলেমিশে থাকি। শখ করে ঘরে আনা খরগোশের নিজস্ব জায়গায় অনধিকার প্রবেশ করেছেন যদি, রেগে যেতে পারে আপনার আদরের পোষা প্রাণীটি! তারা একঘেয়েমিতে ভোগে মানুষের মতো। কাজেই ঘরে খরগোশ থেকে থাকলে খেয়াল রাখা চাই, সে হাসিখুশি আছে নাকি দুনিয়াদারী নিয়ে খুব বিরক্ত; Source: huffingtonpost.com

নাইতে নাইতে যায় বেলা। কুচ্ছিত হাঁসের ছানা কখনো হয় না, সে কেবল গল্পেই আছে। হাঁসের ছানারা অনেক আদুরে আর মিষ্টি দেখতে হয়! পানিতে ভেসে বেড়ানো এই প্রাণীর পালক কিন্তু পানিরোধী। অন্য অনেক প্রাণীর মতো হাঁসও খুব সামাজিক, এবং মজার স্বভাবের হবার কারণে বহু কাল্পনিক চরিত্রে দেখা যায় তাদের; Source: Country Living (UK)

আমাকে বলতে দাও! Source: medium.com

অবাক চোখ! Source: pinterest.com

ছবিগুলো মন ভালো করতে পেরেছে কি? তাহলে বরং সময় পেলেই ঘুরে আসবেন তাদের দুনিয়ায়। মানুষের জটিল সব ঝুট-ঝামেলার বাইরে তাদের সরল হিসেবের জীবনযাপন মন্দ লাগে না কিন্তু!

ফিচার ইমেজ: thinglink.com