চীন ও তাইওয়ানের উত্তেজনার নেপথ্য কারণ কী?

এই নিবন্ধটি প্রথম প্রকাশিত হয় বিবিসিতে। রোর বাংলার পাঠকদের জন্য নিবন্ধটি অনুবাদ করা হয়েছে। 

গত কয়েক বছরে কয়েক শতবার চীন তাইওয়ানের আকাশসীমা লঙ্ঘন করেছে, তাইওয়ানকে কেন্দ্র করে বেড়েছে চীনের সামরিক তৎপরতা। চীনের এই তৎপরতা মেকি হতে পারে, হতে পারে তাইওয়ানের সার্বভৌমত্বের জন্য সত্যিকারের চ্যালেঞ্জ। তবে, তাইওয়ানকে কেন্দ্র করে গত কয়েক বছরে চীনের তৎপরতা বৈশ্বিক মনোযোগের কারণ হয়েছে।

চীন আর তাইওয়ানের এই উত্তেজনার একেবারে কেন্দ্রে রয়েছে তাইওয়ানের ব্যাপারে চীনের দৃষ্টিভঙ্গি। চীন তাইওয়ানকে দেখে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া একটি প্রদেশ হিসেবে। আর বিশ্বাস করে, তাইওয়ান একসময় চীনের সাথে পুনরায় একত্রিত হবে, চীনের অংশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে।

মানচিত্রে চীন আর তাইওয়ান; Image Source: BBC

চীনের এই রাষ্ট্রীয় মতবাদের সাথে তাইওয়ানের অধিকাংশ মানুষই একমত পোষণ করেন না। প্রাতিষ্ঠানিকভাবে স্বাধীনতা ঘোষণা করা হোক বা না হোক, একটি স্বতন্ত্র জাতিসত্তা হিসেবেই থাকতে চায় তাইওয়ানের অধিকাংশ মানুষ।

চীন আর তাইওয়ানের উত্তেজনার ইতিহাস

তাইওয়ানে প্রথম বসতি স্থাপন করে অস্ট্রোনেশিয়ান নৃগোষ্ঠীর মানুষেরা, যারা আধুনিক সময়ের সাউদার্ন চীন থেকে এসেছিলেন বলে মনে করা হয়। চীনের রেকর্ডে এই দ্বীপের প্রথম উপস্থিতি পাওয়া যায় খ্রিষ্টপূর্ব ২৩৯ অব্দে, যখন তখনকার সম্রাট অনুসন্ধানী দলকে পাঠিয়েছিলেন এই অঞ্চলে অনুসন্ধান করতে। চীন যখন তাইওয়ানকে নিজের অংশ হিসেবে দাবি করে, তখন প্রাথমিকভাবে তাদের দাবির নৈতিক বৈধতা হিসেবে এই তথ্যটি উপস্থাপন করে। তাইওয়ান একটি ক্ষুদ্র সময় ডাচ কলোনি (১৬২৪-১৬৬১) হিসেবে ছিল, সেখান থেকে আবার তাইওয়ানের নিয়ন্ত্রণ যায় কুইং সাম্রাজ্যের কাছে, তারা শাসন করে ১৬৮৩ সাল থেকে ১৮৯৫ সাল পর্যন্ত।

সপ্তদশ শতাব্দী থেকে তাইওয়ানে বড় সংখ্যক অভিবাসী আসতে থাকে চীনের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে। জীবন আর জীবিকার সন্ধানে আসা এসব অভিবাসীদের অধিকাংশই এসেছিলেন ফুজিয়ান প্রদেশ থেকে, এসেছিল গাংডং থেকেও, যারা পরিচিত হাক্কা চাইনিজ নামে। ফুকিয়ান আর হাক্কা চাইনিজরা চীনের দুইটি বৃহৎ জাতিগোষ্ঠী।

১৮৯৫ সালের প্রথম সিনো-জাপানিজ যুদ্ধে চীনের কুইং সরকার পরাজিত হয় জাপানের কাছে, তাইওয়ান চলে যায় জাপানের সম্রাটের অধীনে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে জাপান আত্মসমর্পন করে, তাইওয়ানের ভূমির উপর প্রতিষ্ঠিত হয় চীনের কর্তৃত্ব। চীন শুরুতে যুক্তরাষ্ট্র আর যুক্তরাজ্যের সম্মতিতে তাইওয়ান শাসন করতে থাকে, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে এই তিনপক্ষ ছিল বিজয়ীদের অংশে। কিন্তু, পরবর্তী কয়েক বছরের মধ্যেই চীনে একটি গৃহযুদ্ধ শুরু হয়, চীনের তখনকার শাসক চিয়াং কাই-শেকের অনুগত বাহিনীর পরাজয় ঘটে মাও সেতুং এর কমিউনিস্ট বাহিনীর কাছে।

চিয়াং কাইশেক; Image Source: BBC.

 

চিয়াং কাইশেক আর তার কুমিটাং সরকারের অনুসারীরা তখন তাইওয়ানে পালিয়ে যান। চিয়াং কাইশেকের অনুসারীরা ১৯৪৯ সালে তাইওয়ানে প্রবেশের স্বল্প সময়ের মধ্যেই তাইওয়ানের রাজনৈতিক কর্তৃত্ব গ্রহণ করে, পরবর্তীতে দীর্ঘসময় ধরে নিয়ন্ত্রণ করে চীনের রাজনীতিকে। চিয়াং কাইশেকের অনুসারীর সংখ্যা তখন ছিলো প্রায় দেড় মিলিয়ন, মোট জনসংখ্যার চৌদ্দ শতাংশ ছিলো তারা।

তাইওয়ানে যদিও সংগঠিত স্বৈরতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছিলো, স্থানীয় পর্যায়ে গণতন্ত্রায়নের জন্য চাপ বাড়ছিলো। কর্তৃত্ববাদী শাসনের নৈতিক বৈধতা কমছিলো, বিভিন্ন স্থানে চলছিলো গণতন্ত্রের পক্ষে বিক্ষোভ ও অন্যান্য রাজনৈতিক কর্মসূচি। ফলে, বাধ্য হয়েই চিয়াং কাই-শেকের পুত্র চিয়াং চিং-কু তাইওয়ানে গণতন্ত্রায়নের পথ।

তাইওয়ানে গণতন্ত্রের পথ-প্রদর্শক হিসেবে পরিচিত প্রেসিডেন্ট লি টেং-হিউ সাংবিধানিক পরিবর্তনের মাধ্যমে শাসনতান্ত্রিক বিবর্তন শুরু করেন, যার ফলশ্রুতিতে ২০০০ সালে তাইওয়ানে আসে কুমিটাংদের বাইরে প্রথম প্রেসিডেন্ট, প্রেসিডেন্ট চেন সুই-বিয়ান।

সাম্প্রতিক বৈরিতার কারণ

চীন আর তাইওয়ানের সম্পর্কের উন্নয়ন শুরু হয় গত শতাব্দীর আশির দশকে। চীন তাইওয়ানকে ‘এক দেশ, দুই নীতি’ অনুসরণ করে পুনঃএকত্রীকরণের প্রস্তাব দেয়, যেখানে তাইওয়ানের মোটাদাগে স্বায়ত্তশাসন থাকবে চীনের কমিউনিস্ট পার্টির কর্তৃত্ববাদ থেকে। চীনের এই প্রস্তাবিত ফর্মূলা ব্যবহৃত হয়েছে হংকংয়ের ক্ষেত্রে।

তাইওয়ান চীনের এই প্রস্তাব ফিরিয়ে দেয়, স্বাধীন সত্তা ধরে রাখার নীতিতে অটল থাকে তাইওয়ানের শাসকেরা। তবে, তাইওয়ান চীনে ভ্রমণ আর বিনিয়োগের ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা শিথিল করে। ১৯৯১ সালে তাইওয়ান চীনের সাথে তাদের যুদ্ধের সমাপ্তির ঘোষণা দেয়। পরবর্তীতে বিভিন্ন সময়ে চীন ও তাইওয়ান এর কর্মকর্তাদের বৈঠক হয়েছে, তবে চীনের দিক থেকে এই ধরনের বৈঠক কখনো স্বীকার করা হয়নি। চীনের ভাষ্য, চীন যেহেতু তাইওয়ানের সরকারকে বৈধ মনে করে না, ফলে জি-টু-জি বৈঠকের কোনো সু্যোগ নেই।

প্রেসিডেন্ট চেন সুয়ি-বিইয়ান; Image Source: AFP

পরবর্তীতে ২০০০ সালে যখন প্রেসিডেন্ট হিসেবে চেন সুয়ি-বিয়ান নির্বাচিত হন, চীন তাইওয়ানের ব্যাপারে সতর্ক হয়ে ওঠে। প্রেসিডেন্ট চেন খোলাখুলিভাবে চীনের বিরোধিতা করে স্বাধীনতার পক্ষে কথা বলতেন। ২০০৪ সালে তাইওয়ানে প্রেসিডেন্ট হিসেবে চেন সুয়ি-বিয়ান পূনঃনির্বাচিত হন। এর একবছর পরেই চীন তাইওয়ানের স্বাধীনতার অর্জন আটকাতে “সংঘাতপূর্ণ উপায়” ব্যবহারের আইনী বৈধতা দেয়। প্রেসিডেন্ট চেনের উত্তরসূরি হিসেবে প্রেসিডেন্ট অফিসে আসেন মা ইয়াং-জু, অর্থনৈতিক চুক্তির মাধ্যমে তার সময়ে চীনের সাথে সম্পর্ক উন্নয়নের প্রয়াস নেওয়া হয়।

এর আট বছর পরে, তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হন সাই ইং-ওয়েন। প্রেসিডেন্ট সাই ইং-ওয়েনের রাজনৈতিক উত্থান ঘটেছে ডেমোক্রেটিক প্রগ্রেসিভ পার্টিকে কেন্দ্র করে, যারা খোলাখুলিভাবেই তাইওয়ানের প্রাতিষ্ঠানিক স্বাধীনতার ব্যাপারে বিশ্বাস করে। ২০১৬ সালে যখন ডোলান্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হন, প্রেসিডেন্ট সাই এর সাথে তখন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ফোনালাপ হয়। দুই দেশের শীর্ষ পর্যায়ে এ ধরনের আলোচনার ঘটনা ঘটে প্রায় চার যুগ পরে।

তাইওয়ান নিয়ে উত্তেজনা রয়েছে চীন আর যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে; Image Source: Bllomberg Quint

তাইওয়ানের সাথে যুক্তরাষ্ট্রের আনুষ্ঠানিক সম্পর্ক না থাকলেও, যুক্তরাষ্ট্র বিভিন্ন সময় তাইওয়ানকে প্রতিরক্ষা খাতে সহযোগিতা করেছে। সহায়তা করেছে, চীনের আগ্রাসনের বিপরীতে তাইওয়ানের কাছে আবির্ভূত হয়েছে নিরাপত্তা সহযোগী হিসেবে।

২০১৮ সাল জুড়ে চীন আন্তর্জাতিক কোম্পানিগুলোর উপর বিভিন্নভাবে চাপ প্রয়োগ করেছে, তাইওয়ানকে কোম্পানির ওয়েবসাইটে চীনের অংশ হিসেবে দেখানোর জন্য। চীনের সরকারের এই সিদ্ধান্তের সাথে সম্মতি জ্ঞাপন না করলে কোম্পানিগুলোর ওয়েবসাইট বন্ধ করার হুমকি দেওয়া হয়েছে, হুমকি দেওয়া হয়েছে চীনের কোম্পানিগুলোর ব্যবসা বন্ধ করে দেওয়ার।

প্রেসিডেন্ট সাই ২০২০ সালের নির্বাচনে প্রেসিডেন্ট হিসেব পুনরায় নির্বাচিত হন। এই সময়ে হংকংয়ের ভূখণ্ডে চলছিল চীনবিরোধী বিক্ষোভ, যেটির ঘটনাপ্রবাহ গভীরভাবে অনুসরণ করছিল তাইওয়ানের নাগরিকেরা।  

২০২০ সালের শেষদিকে চীন হংকংয়ে ন্যাশনাল সিকিউরিটি আইন প্রয়োগ শুরু করে, বৈশ্বিক পরাশক্তিগুলো যেটিকে চীনের রাজনৈতিক কর্তৃত্বের প্রশ্নে স্বৈরতান্ত্রিক পদক্ষেপ হিসেবে দেখে, দেখে এশিয়াতে চীনের কর্তৃত্বকে নিরঙ্কুশ করার পদক্ষেপ হিসেবে। একই সময়ে, যুক্তরাষ্ট্র তাইওয়ানের সাথে সম্পর্ক উন্নয়ন শুরু করে। গত বছরের সেপ্টেম্বরে ওয়াশিংটন স্টেট ডিপার্টমেন্টের শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তারা তাইওয়ানে যান, যেটি কয়েক বছরের মধ্যে প্রথমবারের মতো শীর্ষপর্যায়ের বৈঠক।

প্রেসিডেন্ট সাই ইং-ওয়েন; Image Source: BBC

বেইজিং ওয়াশিংটনের স্টেট ডিপার্টমেন্টের কর্মকর্তাদের সাথে তাইওইয়ানের শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের এই বৈঠকের সমালোচনা করে, যুক্তরাষ্ট্র সতর্ক করে তাইওয়ানের স্বাধীনতার ব্যাপারে বিশ্বকে ভুল বার্তা দেওয়ার ঘটনাপ্রবাহের ব্যাপারে। যুক্তরাষ্ট্র আর তাইওয়ানের কর্মকর্তাদের বৈঠক চলার মধ্যেই চীন সামরিক মহড়ার আয়োজন করে তাইওয়ানের ভূখণ্ডের পাশে।

এই বছর, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বাইডেনের প্রশাসন তাইওয়ানের প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের দায়বদ্ধতাকে পুনঃব্যক্ত করেছে। তাইওয়ান সরকারের ভাষ্য অনুযায়ী, প্রেসিডেন্ট বাইডেন ক্ষমতা নেওয়ার কয়েক দিনের মধ্যেই চীনের যুদ্ধবিমান বেশ কয়েকবার তাইওয়ানের আকাশসীমা লঙ্ঘন করেছে। এই বছরের ১২ এপ্রিল তাইওয়ান জানায়, চীনের রেকর্ডসংখ্যক যুদ্ধবিমান তাইওয়ানের আকাশসীমা লঙ্ঘন করেছে।

এর প্রতিক্রিয়ায় ইন্দো-প্যাসিফিক কমান্ডের কমান্ড্যান্ট এডমিরাল জন এক্যুইলিনো নীতিনির্ধারকদের বলেন, চীন তাইওয়ান দখলের ব্যাপারে আগের চেয়ে অনেক বেশি কাছাকাছি অবস্থানে রয়েছে এবং অবস্থান অনেকের ধারণার বেশি কাছাকাছি। 

তাইওয়ানকে কারা স্বীকৃতি দেয়?

তাইওয়ানের ব্যাপারে রাজনৈতিক শক্তিগুলোর মধ্যে ভিন্নমত রয়েছে, রয়েছে দ্বিধা-বিভক্ত অবস্থান। চীন তাইওয়ানকে দেখে একটি বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া প্রদেশ হিসেবে, যেটি শক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে হলেও একীভূত করা হবে। কিন্তু, তাইওয়ানের রাজনৈতিক নেতৃত্ব তাইওয়ানকে প্রদেশ হিসেবে মানতে নারাজ, তাইওয়ানকে তারা দেখেন একটি স্বতন্ত্র রাষ্ট্র হিসেবে। তাইওয়ানের নিজস্ব সংবিধান আছে, গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সরকার আছে, আছে ত্রিশ হাজার সদস্যের সামরিক বাহিনী।

তাইওয়ানে বাড়ছে চীনবিরোঢী মনোভাব; Image Source: Getty Images

চিয়াং কাই-শেকের রিপাবলিক অব চায়না সরকার ১৯৪৯ পালিয়ে এসেছিল চীনের মূল ভূখণ্ড থেকে। প্রথমে এই সরকার পুরো চীনের প্রতিনিধিত্বের দাবি জানায়, যেটি তারা পুনরায় দখলের প্রত্যাশা করে। এই সরকার নিরাপত্তা পরিষদে চীনের প্রতিনিধিত্ব করেছে, পাশ্চাত্যের দেশগুলোও এই সরকারকেই চীনের প্রতিনিধি হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছিল।

১৯৭১ সালে বদলে যায় দৃশ্যপট। জাতিসংঘ বেইজিংইয়ের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করে, চিয়াং কাই-শেকের অনুসারী সরকারকে ঠেলে দেওয়া হয় দৃশ্যপটের বাইরে। তাইওয়ানের সরকারকে স্বীকৃত হওয়া দেশের সংখ্যা নেমে আসে ১৫ তে।

স্বাধীনতা তাইওয়ানে কতটা গুরুত্বপূর্ণ?

চীন আর তাইওয়ানে মধ্যে রাজনৈতিক সম্পর্কের অগ্রগতি না হলেও, সময়ের সাথে দুই দেশের মানুষের আসা-যাওয়া বেড়েছে, বেড়েছে অর্থনৈতিক লেনদেন। তাইওয়ানিজ কোম্পানিগুলো ইতোমধ্যেই চীনে প্রায় ষাট বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেছে, প্রায় এক মিলিয়ন তাইওয়ানিজ সেখানে বসবাস করে এবং অনেক তাইওয়ানিজ চীনে কলকারখানা বসিয়েছে।

তাইওয়ানের অনেকে মনে করে, তাদের অর্থনীতি চীনের উপর অনেক বেশি নির্ভরশীল। আবার অনেকে মনে করেন, চীনের সাথে ব্যবসায়িক সম্পর্ক উন্নতির ফলে সামরিক আগ্রাসনের সম্ভাবনা কমবে, কারণ সামরিক আগ্রাসনের সম্ভাব্য অর্থনৈতিক পরিণতিগুলো এড়াতে চাইবে।

তাইওয়ানকে নিয়ে যেকোনো সময় যুদ্ধে জড়াতে পারে চীন আর যুক্তরাষ্ট্র; Image Source: East Asia Forum

একটি সমালোচিত অর্থনৈতিক চুক্তির প্রেক্ষাপটে ২০১৪ সালে ছড়িয়ে পড়ে সানফ্লাওয়ার মুভমেন্ট। এই আন্দোলনের সময়ে শিক্ষার্থীরা পার্লামেন্ট ভবন ঘিরে ফেলে, পলিটিক্যাল এক্টিভিস্টরাও এই আন্দোলনে জড়িয়ে যায় চীনের প্রভাব বাড়ার যুক্তিতে।

সরকারিভাবে, ক্ষমতায় থাকা ডেমোক্রেটিক প্রগ্রেসিভ পার্টি তাইওয়ানের স্বাধীনতার পক্ষে অবস্থান নিচ্ছে, চিয়াং কাই-শেকের অনুসারী কেএমটির অবস্থান চীনের সাথে পুনঃএকত্রীকরণের পক্ষে। ২০২১ সালের মার্চ মাসের একটি মতামত জরিপ দেখাচ্ছে, তাইওয়ানের অধিকাংশ মানুষ বর্তমানে ডিপিপির অবস্থানকে সমর্থন করেন, সমর্থন করেন সার্বভৌমত্ব রক্ষার ধারণাকে। অধিকাংশ মানুষ এখন নিজেকে তাইওয়ানিজ হিসেবে পরিচয় দেন, চাইনিজ বলার চেয়ে।

স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের পক্ষে অবস্থান নেওয়া প্রেসিডেন্ট সিন ২০২০ সালের নির্বাচনে পুনরায় নির্বাচিত হয়েছে, পেয়েছেন রেকর্ডসংখ্যক ৮.২ মিলিয়ন ভোট। বেইজিংয়ের রাজনৈতিক উচ্চাভিলাসের প্রতি এটি একটি রাজনৈতিক তিরস্কারের মতো ঘটনা।

This article is written in Bangla, about the contention behind the China-Taiwan conflict. It was adopted from BBC. 

All the necessary links are hyperlinked inside. 

Feature Image: INOMUN

Related Articles