ইজরায়েলের সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ মিত্র দেশ কোনটি? এই প্রশ্নের উত্তর মোটামুটি সবারই জানা- যুক্তরাষ্ট্র। মধ্যপ্রাচ্যের ইহুদিবাদী দেশটির সকল বিপদের সঙ্গীও মার্কিনরা।

ইজরায়েল সৃষ্টির পর থেকে যুক্তরাষ্ট্র প্রায় ১১৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের আর্থিক সাহায্য দিয়েছে। পাশাপাশি জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে ইজরায়েলের বিরুদ্ধে ওঠা যেকোনো নিন্দা অথবা শাস্তির প্রস্তাব আটকে দিতেও বরাবরই তৎপর যুক্তরাষ্ট্র। এমনকি জাতিসংঘে যুক্তরাষ্ট্র যতবার ভেটো দিয়েছে, তার অর্ধেকই ইজরায়েলের জন্য!

কিন্তু কেন? যুক্তরাষ্ট্র ঠিক কী কারণে ইজরায়েলকে অন্য সব দেশের চেয়ে আলাদা নজরে দেখে? এসব প্রশ্নের উত্তর জানার আগে যুক্তরাষ্ট্র এবং ইজরায়েল কখন ও কীভাবে একে অপরের পরিপূরক হয়ে উঠল- সে সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

ইজরায়েলের সৃষ্টি হয় ১৯৪৮ সালের ১৪ মে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট হ্যারি ট্রুম্যান তখন প্রথম বিশ্বনেতা হিসেবে ইজরায়েলকে স্বীকৃতি দেন। কিন্তু এরপরও যুক্তরাষ্ট্রের সাথে তাদের সুসম্পর্ক ছিল, তেমন নয়। এর প্রমাণ পাওয়া যায় ১৯৫৬ সালে মিশর আক্রমণের সময়।

সেই হামলায় ফ্রান্স ও ব্রিটেনের সাথে ইজরায়েলও অংশ নেয়। ইজরায়েল মিশরের সিনাই উপদ্বীপ ও গাজার একটি অংশ দখল করলে যুক্তরাষ্ট্র তাদের দেওয়া আর্থিক সহায়তা বাতিল করার হুমকি দেয়। এরপর দীর্ঘদিন ইজরায়েলের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের বিরোধিতা করে এসেছে যুক্তরাষ্ট্র।

গোপন পারমাণবিক প্রকল্পের কথাই বলা যেতে পারে উদাহরণ হিসেবে। ইজরায়েলের এই প্রকল্প বন্ধ করার জন্য যুক্তরাষ্ট্র সক্রিয়ভাবে কাজ করেছে। কারণ তখন ইজরায়েলের নিরাপত্তার চেয়ে তাদের কাছে নিজেদের পররাষ্ট্রনীতির গুরুত্ব বেশি ছিল।

কিন্তু ১৯৬৭ সালের পর যুক্তরাষ্ট্র ও ইজরায়েলের মধ্যকার সম্পর্ক দ্রুতগতিতে ঘনিষ্ঠ থেকে ঘনিষ্ঠতর হতে থাকে। ১৯৭৩ সালে আরব-ইজরায়েল যুদ্ধের সময় মার্কিনীরা ইজরায়েলের পক্ষ নেয়। এই সিদ্ধান্ত দুই দেশের সম্পর্কের মজবুত ভিত্তি রচনা করে।

তখন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ও কূটনীতিকরা বুঝতে পেরেছিলেন যে, মধ্যপ্রাচ্যে সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রভাব কমাতে ইজরায়েল তাদের কার্যকরী এক অস্ত্র হতে পারে। সত্যিকার অর্থে তখন আরব দেশগুলোতে সোভিয়েত ইউনিয়নের ব্যাপক প্রভাব ছিল। সেই প্রভাব কমানোর জন্য যুক্তরাষ্ট্র ইজরায়েলের সাথে কূটনৈতিক ও সামরিক সম্পর্ক জোরদার করে। 

একসাথে বারাক ওবামা ও বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু © Lior Mizrahi

সোভিয়েত ইউনিয়নের সাথে স্নায়ুযুদ্ধের সময় থেকেই ইজরায়েল ও যুক্তরাষ্ট্র আরো ঘনিষ্ঠ হতে থাকে। এই যুদ্ধে মার্কিনরা বেশ সফলতাও অর্জন করে এবং নিজেদের বিশ্বের একমাত্র সুপারপাওয়ার হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হয়। কিন্তু স্নায়ুযুদ্ধ শেষ হয়ে যাওয়ার পরপরই আবার যুক্তরাষ্ট্র ইজরায়েলকে ছুঁড়ে ফেলে দেয়নি। বরং নিজেদের প্রয়োজনে সম্পর্কের আরো উন্নয়ন করেছে।

স্নায়ুযুদ্ধের সময় থেকেই যুক্তরাষ্ট্র মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন বিরোধ ও সমস্যা 'সমাধানে' উদ্যোগী হয়। এর বড় কারণ ছিল তেলের বাজার নিজেদের নিয়ন্ত্রণে রাখা। আর সেজন্য তখন দরকার ছিল মধ্যপ্রাচ্যের স্থিতিশীলতা। যুক্তরাষ্ট্র সেই সময়ে মধ্যপ্রাচ্যের আঞ্চলিক স্থিতিশীলতার 'জামিনদার' হিসেবে নিজেকে উপস্থাপন করে!

সেসময় সৌদি আরব, মিশর ও ইজরায়েলের মতো দেশগুলো আমেরিকার সাহায্য গ্রহণে সম্মত হয়। কারণ এর মাধ্যমে তারা মধ্যপ্রাচ্যের রাজনীতিতে আলাদাভাবে প্রভাব সৃষ্টি করতে পারবে। কিন্তু ইরান, সিরিয়া ও ইরাকের মতো দেশগুলো যুক্তরাষ্ট্রের সাথে হাত মেলায়নি। এই দেশগুলো আগের মতোই নিজেদের মর্যাদা নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করে।

তখন যুক্তরাষ্ট্র বুঝতে পারে, মধ্যপ্রাচ্যে তাদের এমন একটি মিত্র দরকার, যারা তাদের প্রতিরূপ হিসেবে কাজ করবে। কারণ মধ্যপ্রাচ্যের সাথে যুক্তরাষ্ট্রের ভৌগোলিক দূরত্বের একটি বিষয় ছিল। সেই সমস্যা নিরসনে শক্ত ঘাঁটি বিনির্মাণের জন্যই তারা বেছে নেয় ইজরায়েলকে।

আরব-ইজরায়েল যুদ্ধের সময়কার একটি ছবি; Image Source: Reuters 

যুক্তরাষ্ট্র তখন ইজরায়েলের সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক তৈরির জন্য তাদের হয়ে ফিলিস্তিনের সাথে দেনদরবার করার দায়িত্ব গ্রহণ করে। একমাত্র যুক্তরাষ্ট্রের আশ্বাসের কারণেই এখনো ইজরায়েল যেকোনো শান্তি আলোচনার টেবিলে বসতে রাজি হয়। বিগত তিন মার্কিন প্রেসিডেন্টই চেষ্টা করেছেন ফিলিস্তিনের সাথে ইজরায়েলের একটি সুরাহা করার। তবে এক্ষেত্রে তাদের সমর্থনের পাল্লা তেল আবিবের দিকেই বেশি থেকেছে।

ইজরায়েল ও মিসরের শান্তিচুক্তির পর হাত মেলাচ্ছেন আনোয়ার সাদাত, জিমি কার্টার ও মেনাচেম বেগিন © David Hume Kennerly

ইজরায়েলের সাথে যুক্তরাষ্ট্রের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক তৈরির পরও অনেক বিষয়ে মতবিরোধ হয়েছে। তবে কখনো তা চরম বৈরিতা সৃষ্টি করেনি। বরং যুক্তরাষ্ট্র সবসময়ই ইজরায়েলের অনেক অপরাধ দেখেও না দেখার ভান করে থেকেছে, যা অব্যাহত রয়েছে বর্তমানেও। কিন্তু এর পেছনের রহস্য কী? শুধু মধ্যপ্রাচ্যের নিয়ন্ত্রণ রাখার জন্য তারা ইজরায়েলকে সমর্থন করে, নাকি আরো কোনো কারণ রয়েছে? চলুন জেনে নেওয়া যাক।

যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতিতে সফলতার প্রথম শর্ত ইজরায়েলকে সমর্থন

যুক্তরাষ্ট্র শুধুমাত্র তাদের পররাষ্ট্র নীতি এবং মধ্যপ্রাচ্যের কৌশলের জন্য ইজরায়েলকে সমর্থন করে না। এর চেয়ে বড় প্রভাবক হচ্ছে তাদের অভ্যন্তরীণ রাজনীতি। আশির দশক থেকে যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতিতে ইজরায়েল বড় এক ইস্যু। কারণ অধিকাংশ আমেরিকান ইজরায়েলিদের প্রতি সহানুভূতিশীল। এ কারণে যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতিতে যারা ইজরায়েলকে সমর্থন করে, তাদেরকে ভালো চোখে দেখা হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে সব ইস্যুর মধ্যে ইজরায়েলের পাল্লা ভারী। যুক্তরাষ্ট্রে এক গবেষণায় দেখা গেছে যে, মার্কিন নাগরিকদের প্রায় ৭০ ভাগই ইজরায়েলকে সমর্থন করেন এবং তারা যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ করতে ইচ্ছুক। বিপরীতে মার্কিন মুলুকে ফিলিস্তিনিদের প্রতি সহানুভূতি দিনকে দিন আরো কমছে।

নিউ ইয়র্কে ইজরায়েলের পক্ষে মিছিল © Stan Honda

মার্কিন জরিপকারী সংস্থা 'গ্যালাপ' ১৯৮৮ সাল থেকে মার্কিন নাগরিকদের ইজরায়েল ও ফিলিস্তিনি নাগরিকদের প্রতি মার্কিনিদের সমর্থনের তুলনামূলক তথ্য সংগ্রহ করছে। আশির দশকের শেষভাগে ফিলিস্তিনিদের প্রতি মাত্র ১৫ শতাংশ মার্কিন নাগরিক সহানুভূতিশীল ছিলেন। সেই হার কমতে কমতে সর্বশেষ ১২ শতাংশে নেমেছে। বিপরীতে ইজরায়েলের ইহুদিদের প্রতি সমর্থন আগের চেয়েও বেড়েছে। যে কারণে মার্কিন রাজনীতিবিদদের বড় একটি অংশ কট্টরভাবে ইজরায়েলকে সমর্থন করেন।

কিন্তু মার্কিন নাগরিকরা কেন ইজরায়েলকে এত বেশি সমর্থন করে? এর বড় এক কারণ মার্কিন নাগরিকদের শেয়ার ভ্যালুর চেতনা। এছাড়া তাদের কাছে ইজরায়েলের একটি ইতিবাচক দিক রয়েছে। সেটি হলো, ইজরায়েলে রয়েছে মধ্যপ্রাচ্যের একমাত্র গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থা।

যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকেরা একে তাদের ও ইজরায়েলের মধ্যকার সম্পর্কের ভিত্তি হিসেবে বিবেচনা করেন। তবে একইসাথে তারা মনে করেন, ইজরায়েল যদি শেয়ার ভ্যালু ও গণতন্ত্র থেকে দূরে সরে যায়, তাহলে তারা এই সমর্থন প্রত্যাহার করবেন।

যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতিতে ইহুদি এবং খ্রিস্টান ধর্মীয় সংগঠনগুলো অধিক সক্রিয় ও শক্তিশালী। কংগ্রেসে ডেমোক্রেটিক ও রিপাবলিকান পার্টি থেকে উভয় ধর্মেরই নির্বাচিত সদস্য রয়েছে, যাদের সবাই ইজরায়েল পন্থী। যার ফলে কংগ্রেসে ইজরায়েলের পক্ষে কোনো বিল পাস করা বেশ সহজ।

তবে আমেরিকান খ্রিস্টান ও ইহুদিদের মধ্যে ইজরায়েলকে সমর্থন করা নিয়ে সামান্য পার্থক্য রয়েছে। আমেরিকান খ্রিস্টানদের অধিকাংশ যেখানে পূর্ণভাবে ইজরায়েলকে সমর্থন করেন, সেখানে ইহুদিদের মধ্যেই কিছু মতবিরোধ রয়েছে। যেমন- আমেরিকার প্রগতিশীল ইহুদিদের ৬৫ শতাংশ পশ্চিম তীরে ইজরায়েলের নতুন করে বসতি স্থাপনের বিপক্ষে। কিন্তু খ্রিস্টানরা এ বিষয়টিকে ইতিবাচকভাবেই দেখেন।

ইজরায়েল ও ফিলিস্তিনের পক্ষে আমেরিকার জনগণের সমর্থনের একটি তুলনামূলক চিত্র ©  Gallup

আবার যে সকল ইহুদিদের বয়স ৩৫ বছরের কম, তারা নিজেদের ইহুদিবাদীই মনে করেন না। আর বয়স্ক ও রক্ষণশীল ইহুদিদের মতামতের মধ্যে দিয়ে আপামর ইহুদিদের মনোভাবও প্রকাশ পায় না। কারণ এদের অনেকেই আমেরিকান জাতীয়তাবাদকে অধিক গুরুত্ব দিয়ে থাকে।

তবে রক্ষণশীল ইহুদিরা মনে করেন, যুক্তরাষ্ট্রের ভোট ইজরায়েলের বিভিন্ন ইস্যুকে কেন্দ্র করেই হোক। এই রক্ষণশীলদের বড় অংশই ফ্লোরিডা ও পেনসিলভেনিয়াতে বাস করেন। এই দুটি অঞ্চল আবার যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

যুক্তরাষ্ট্রের সবগুলো নির্বাচনী আসনে যুক্তরাষ্ট্র-ইজরায়েলের সম্পর্ক নিয়ে সাধারণ মানুষের মনোভাব জানতে একটি জরিপ করেছে পিউ রিসার্চ সেন্টার। তাদের তথ্য বলছে, ৫৪ শতাংশ আমেরিকান ইহুদি মনে করেন, যুক্তরাষ্ট্র সরকার ইজরায়েলকে পর্যাপ্ত সাহায্য করেছে। আর ৩১ শতাংশ মনে করেন, যুক্তরাষ্ট্র যা করেছে, তা এখনো যথেষ্ট নয়! অপরদিকে ৩১ শতাংশ শ্বেতাঙ্গ খ্রিস্টান মনে করেন যে, যুক্তরাষ্ট্র সরকার ইজরায়েলের জন্য সম্ভাব্য সব সহযোগিতা করেছে। আর ৪৬ শতাংশ মনে করেন আরো সাহায্য করা উচিত।

সবশেষে বোঝা যাচ্ছে যে, যুক্তরাষ্ট্রের খ্রিস্টান, ইহুদি ও উদারচিন্তার নাগরিকদের সম্মিলিত সমর্থন পাচ্ছে ইজরায়েল, যা তাদের মধ্যপ্রাচ্যে একটি শক্তিশালী রাষ্ট্রে পরিণত করেছে।

আইপ্যাকের শক্তিশালী লবিং

যুক্তরাষ্ট্র ও ইজরায়েলের ঘনিষ্ঠ সম্পর্কের পেছনে আমেরিকান ইজরায়েল পাবলিক অ্যাফেয়ার্স কমিটি (আইপ্যাক)-এর অবদানকে কেউ অস্বীকার করতে পারবে না। আইপ্যাক কোনো রাজনৈতিক সংগঠন নয়। কিন্তু এরপর তাদের যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র নীতি নির্ধারণের উপর বড় প্রভাব রয়েছে। মার্কিন সরকারের মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক বিভিন্ন সিদ্ধান্তে তাদের ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটে থাকে। কিন্তু তারা এই কাজ করে কীভাবে?

আইপ্যাক মূলত তাদের স্বার্থ হাসিলের জন্য প্রচুর অর্থ ব্যয় করে। তারা সরাসরি কোনো দলকে অর্থ দেয় না। বরং পছন্দের প্রার্থীদের নির্বাচনে অর্থব্যয় করে। বিশেষত রিপাবলিকান প্রার্থীদের তারা অর্থ দিয়ে সাহায্য করে। আর এই কাজটি তারা আশির দশক থেকেই করে আসছে।

আইপ্যাকের অনুষ্ঠানের বারাক ওবামা © Mandel Ngan

'কংগ্রেশনাল ক্লাব' নামে আইপ্যাকের বিশেষ একটি দল আছে। এই দলের প্রত্যেক সদস্য প্রতি নির্বাচনে সর্বনিম্ন পাঁচ হাজার ডলার চাঁদা দিতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। আর এই অর্থ ইজরায়েলপন্থী রাজনীতিবিদদের নির্বাচনে ব্যয় করা হয়। পরবর্তীতের এদের মধ্যে যারা জয়লাভ করে, তাদের মাধ্যমে সিনেট এবং হাউজে প্রভাব বিস্তার করে নিজেদের নীতির বাস্তবায়ন করে।

তবে আইপ্যাক সামগ্রিকভাবে কত অর্থ ব্যয় করে, সেই সম্পর্কে জানা যায় না। তবে তাদের এমন কিছু সদস্য আছে, যারা এক মিলিয়ন থেকে শত মিলিয়ন পর্যন্ত অর্থ সাহায্য দিয়ে থাকে। আর এই সকল দাতাদের ধ্যান-ধারণা সবই ইজরায়েলকে ঘিরে। তারা যেকোনো মূল্যে মধ্যপ্রাচ্যে ইজরায়েলকে টিকিয়ে রাখতে চান।

আইপ্যাক শুধু নির্বাচনে অর্থ ব্যয় করে না। সেই সাথে যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন কংগ্রেস সদস্যকে তারা ইজরায়েল সফরে নিয়ে যান। যখন এসব সদস্য ইজরায়েল সফর করেন, তাদের মধ্যে স্বাভাবিকভাবে দেশটির জন্য আলাদা অনুভূতি সৃষ্টি হয়। আদতে তাদের সফরকে সাজানোই হয় তেমনভাবে!

আইপ্যাকের অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু; Image Source: Times of Israel  

যুক্তরাষ্ট্রে আইপ্যাকের মতো আরো কিছু ইজরায়েলপন্থী লবি রয়েছে। এদের অনেক সংগঠনই আইপ্যাকের চেয়ে অধিক অর্থ ব্যয় করে। তবে অন্য সব সংগঠনের চেয়ে আইপ্যাকের সাফল্য অনেক বেশি।

শুধুমাত্র ট্রাম্পের শাসনামলেই আইপ্যাক অনেকগুলো সফলতা অর্জন করেছে। এর মধ্যে রয়েছে জেরুজালেমকে ইজরায়েলের রাজধানী ঘোষণা, ইরানের সাথে করা পরমাণু চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রের বের হয়ে আসা এবং ফিলিস্তিনকে দেওয়া সাহায্য বন্ধ করা।

অর্থনৈতিক সম্পর্ক

যুক্তরাষ্ট্র ও ইজরায়েলের সম্পর্ককে বিশ্বের অন্যতম ব্যয়বহুল কূটনৈতিক সম্পর্কও বলা যায়। যুক্তরাষ্ট্রে প্রভাব সৃষ্টির জন্য ইজরায়েল যেমন প্রচুর অর্থ ব্যয় করে, তেমনি যুক্তরাষ্ট্রও তাদের বড় অঙ্কের আর্থিক সহায়তা দিয়ে থাকে। তবে এরপরও দুই দেশের মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্যিক সম্পর্ক রয়েছে, যেখান থেকে লাভবান হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র।

১৯৮৫ সালে ইজরায়েলের সাথে মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি করে যুক্তরাষ্ট্র। এরপর থেকে দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্যের হার অনেক বেড়েছে। ইজরায়েলে থাকা মার্কিন দূতাবাসের তথ্যমতে, ২০১৬ সালে দুই দেশ প্রায় ৪৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের ব্যবসা করেছে, যা থেকে সিংহভাগ লাভবান হয়েছে মার্কিন প্রতিষ্ঠানগুলো। এছাড়া যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় ২৪ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেছে ইজরায়েল।

বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু ও ডোনাল্ড ট্রাম্প © Kobi Gideon

ইজরায়েলে আইটি থেকে শুরু করে জ্বালানি, ঔষধ, খাবার, প্রতিরক্ষা এবং সেবা রপ্তানি করে থাকে যুক্তরাষ্ট্র। যুক্তরাষ্ট্রের জন্য ইজরায়েল বেশ গুরুত্বপূর্ণ একটি বাজার। দেশটির বিভিন্ন রাজ্য ইহুদিপ্রধান দেশটির সাথে বিভিন্ন ব্যবসা করে আসছে, যা থেকে সামগ্রিকভাবে মার্কিন অর্থনীতি লাভবান হচ্ছে। বলা হয়ে থেকে অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিকভাবে ইজরায়েল যুক্তরাষ্ট্রকে তার কল্পনার চেয়েও অনেক বেশি দিয়েছে। এর প্রতিদান অবশ্য যুক্তরাষ্ট্রও কম দিচ্ছে না!

ইজরায়েলের প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থন কখনো পরিবর্তন হবে কি?

এই প্রশ্নের যথাযথ উত্তর দেওয়া খু্বই কঠিন। কারণ যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র নীতিতে ইজরায়েলের অবস্থান ভবিষ্যতে কোথায় দাঁড়াবে- তা বলা খু্বই মুশকিল। কিন্তু বর্তমান সময়ে যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতিতে ইজরায়েলপন্থীদের যে প্রভাব- তা খুব শীঘ্রই হ্রাস পাবে না। সেই হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র ও ইজরায়েলের মিত্রতা আরো দীর্ঘস্থায়ী হবে।

তবে ইজরায়েল যদি পশ্চিম তীরে তাদের বসতি স্থাপন অব্যাহত রাখে, তা হয়তো ভবিষ্যতে দুই দেশের সম্পর্কে প্রভাব রাখতে পারে। এর আগে বারাক ওবামা সাময়িকভাবে ইজরায়েলের পশ্চিম তীরের বসতি স্থাপন সাময়িকভাবে বন্ধ করেছিলেন। তখন ইজরায়েল তাদের ঘনিষ্ঠ কংগ্রেস সদস্যদের মাধ্যমে ওবামার ওপর চাপ সৃষ্টি করেন।

যুক্তরাষ্ট্র ও ইজরায়েলের সম্পর্ক ভবিষ্যতেও অটুট থাকবে বলে ধরে নেওয়া যায়; Image Source: Kevin Lamarque

তবে মূল বিষয় হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের অভ্যন্তরীণ রাজনীতির প্রধান দুটি দলই ইজরায়েলকে পূর্ণ সমর্থন দিয়ে আসছে। যে কারণে তাদের মধ্যকার সম্পর্ক নিকট ভবিষ্যতে একেবারে খারাপ হওয়ার সম্ভাবনা নেই। এছাড়া যুক্তরাষ্ট্র কখনোই মধ্যপ্রাচ্যের নিয়ন্ত্রণ হারাতে চায় না। সেই নিয়ন্ত্রণ যদি তারা ধরে রাখতে চায়, তাহলে কৌশলগতভাবে ইজরায়েলকে তাদের প্রয়োজন।

সব মিলিয়ে বলা যায়, অদূর ভবিষ্যতে যুক্তরাষ্ট্র ও ইজরায়েলের সম্পর্কের তেমন কোনো অবনতি হওয়ার সম্ভাবনা নেই। যদিও আন্তর্জাতিক রাজনীতে স্থায়ী মিত্র বলে কিছু নেই। তবে আমেরিকান ইহুদিদের বর্তমান প্রজন্ম যখন বার্ধক্যে পৌঁছাবে, তখন রক্ষণশীল ইহুদিদের সংখ্যা অনেকটাই কমে যাবে। সেই সময় যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতিতে ইজরায়েলের প্রভাব হ্রাস পেলেও পেতে পারে।

This article is in Bangla language. It is about why Israel so important to usa.

Necessary references have been hyperlinked.

Featured Image Source: Stan Honda