মানব মস্তিষ্ক: সুপারকম্পিউটার হার মানে যার কাছে

আমাদের গোটা শরীরকে নিয়ন্ত্রণ করে ধড়ের উপর বসে থাকা মস্তিষ্কটি। এত জটিল, অসাধারণ আর সুক্ষ্ম মস্তিষ্ক এত নিখুঁতভাবে আমাদের শরীরকে নিয়ন্ত্রণ করে যে তার বর্ণনা শুনতে গেলে যে কারো চোয়াল ঝুলে পড়তে বাধ্য। তবে মস্তিষ্ক নিয়ে ভ্রান্ত ধারনাও কম নেই একেবারে। চলুন জেনে নেওয়া যাক সে সব কথা অবিশ্বাস্য তথ্য।

মস্তিষ্কের শরীরবৃত্ত

মস্তিষ্কের মোট ওজন তিন পাউন্ডের মত। সারা শরীরের সাথে তুলনা করলে আমাদের শরীরের মোট ওজনের মাত্র দু’ভাগ দখল করে আছে মস্তিষ্ক। কিন্তু খরচের বেলায় সে মুক্তকচ্ছ। আমরা যে খাদ্য  গ্রহণ করি তার শতকরা ২০ শতাংশ একাই খরচ করে। এই খাদ্য এবং অক্সিজেন পৌঁছে দেওয়ার জন্য ১,০৪০-৮০ লিটার রক্ত পরিবাহিত হয় চব্বিশ ঘণ্টায়।

মস্তিষ্ক; source: buzzkeys.com

সে কি শুধু খরচ করে? উহু, একদম নয়। প্রতিদিন মস্তিষ্কে ১২ থেকে ২৫ ওয়াট বিদ্যুৎ উৎপন্ন করে। লো ভোল্টেজের LED জ্বালানোর জন্য যথেষ্ট নয় কি?

মস্তিষ্কের অধিকাংশই পানি। পরিসংখ্যানে আনলে দাঁড়ায় ৭৩ শতাংশের মত। বাকি সাতাশ ভাগের ৬০ ভাগই আবার চর্বি। সত্যি বলতে কী, আমাদের দেহের সবচেয়ে ফ্যাটি অংশ এই মস্তিষ্কই। চর্বির কথা আরেকটু বলতে গেলে, আমরা সবসময় কোলেস্টেরল ছাড়া খাবার খুঁজি। কিন্তু শরীরের মোট সঞ্চিত কোলেস্টেরলের ২৫ ভাগ মানে প্রতি চার ভাগের এক ভাগই মস্তিষ্কের কোষে থাকে। এই কোলেস্টেরল এতই অত্যাবশ্যকীয় যে এগুলো ছাড়া নিউরন (স্নায়ু কোষ) মারা যাবে।

বিভিন্ন কারণে আমাদের শরীরে পানিশূন্যতা দেখা দেয়। এতে সবচেয়ে বেশি প্রভাব পড়ে মস্তিষ্কে। মস্তিষ্কে পানির পরিমাণ কমে গেলে আমরা ঠিকভাবে কাজ করতে পারি না। দুই শতাংশ কমে গেলেই আমাদের মনোযোগ, স্মৃতিশক্তি এবং নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতা বাধাপ্রাপ্ত হয়।

একটি নিউরন প্রতি সেকেন্ডে ১,০০০ সংকেত পাঠাতে পারে। প্রতিটি নিউরন অন্যান্য নিউরন এর সাথে প্রায় দশ হাজার বন্ধন তৈরি করে।

নিউরন কোষ source: livescience.com

একটি গমের দানার সমপরিমাণ মস্তিষ্ক টিস্যুতে ১ লক্ষের মতো নিউরন থাকে, যেগুলো পরস্পরের সাথে এক বিলিয়ন বন্ধন তৈরি করে। তাহলে মোট নিউরনের সংখ্যা কত? নিখুঁত হিসেব এখনও পাওয়া যায়নি। তবে বিজ্ঞানিদের ধারণা, সেটা ৮৬ বিলিয়নের কম না। এদের সবাই একরকম তা নয়। প্রায় ১০ হাজার বিভিন্ন রকম নিউরন রয়েছে।

মস্তিষ্ক টিস্যু কিন্তু অক্সিজেনের উপরে খুবই নির্ভরশীল। পাঁচ মিনিট অক্সিজেন সরবরাহ বন্ধ হয়ে গেলে নিউরন মারা যাওয়া শুরু করে। আর নিউরন মারা গেলে সাধারণত তার জায়গা নেয়ার জন্য নতুন কোনো নিউরন তৈরি হয় না। ধূমপান এই অক্সিজেন সরবরাহ বন্ধ করার মূল কালপ্রিট। কি বলতে চাইছি বুঝতে পারছেন তো?

বাচ্চাদের আমরা অনেক সময়ই বলি, এই থাম তো! তোর এখনো বোঝার বয়স হয়নি। ২ বছর বয়সে মস্তিষ্ক ৮০ ভাগ পূর্ণতা পায়। সম্পূর্ণ পূর্ণতা পেতে ২৫ বছর লেগে যায়। সুতরাং আপনি দুই-তিন বছর বয়সের বাচ্চার সামনে যা না তা-ই বলবেন আর ভাববেন সে কিছু বোঝে না, তাহলে কিন্তু ভুল ভাবছেন। বাচ্চারা সব বোঝে!

আমাদের মস্তিষ্ককে সুরক্ষা প্রদান করার জন্য একটি পর্দা রয়েছে যার নাম ব্লাড-ব্রেইন-ব্যারিয়ার। রক্ত থেকে মস্তিষ্কে কী যাবে তা নিয়ন্ত্রণ করে এই পর্দা। ক্ষতিকর পদার্থ এই পর্দা ভেদ করে সাধারণত যেতে পারে না। তবে নিকোটিন কিংবা অ্যালকোহলকে বাধা দিতে পারে না সে।

সারাদিন পঞ্চাশ হাজার বারের বেশি চিন্তা করেন আপনি; source: buzzkeys.com

আপনি সারাদিন সবচেয়ে বেশি কী করেন সেটা কি জানেন? চিন্তা করেন; শুধু চিন্তা করেন আর চিন্তা করেন। সারাদিন প্রায় পঞ্চাশ হাজার বার চিন্তা করেন আপনি! মানে বুঝেছেন? আপনি একজন বড় মাপের চিন্তাবিদ।

কার মস্তিষ্ক কত বড়?

ছেলেদের মস্তিষ্ক মেয়েদের চেয়ে প্রায় ১০ ভাগ বড়। এই তথ্যটি পড়ে ছেলেদের বড় করে হাসি দেয়ার কিছু নেই। যে অংশটি স্মৃতি নিয়ন্ত্রণ করে, সেই হিপোক্যাম্পাস কিন্তু মেয়েদের তুলনামূলক বড়। অ্যালবার্ট আইনস্টাইনের মস্তিষ্ক অন্যদের চেয়ে খানিকটা ছোট ছিলো, প্রায় দশ শতাংশের মত। কিন্তু তাতে নিউরনের ঘনত্ব ছিলো স্বাভাবিক মানুষের চেয়ে বেশি।

বিগত বিশ হাজার বছরে আমাদের মস্তিষ্কের আকার ক্রমশ ছোট হয়ে গেছে। এই দীর্ঘ সময়ে যতটুকু ছোট হয়েছে তা দিয়ে একটি টেনিস বল বানানো যাবে। ভালো কথা, নিয়ান্ডারথালদের মস্তিষ্ক মানুষের চেয়ে বড় ছিলো।

লন্ডনের ট্যাক্সিক্যাব চালকদের হিপোক্যাম্পাস গড়পড়তা মানুষের চেয়ে বড়। কেন? তাদের প্রায় পঁচিশ হাজার রাস্তা মুখস্ত রাখতে হয় যে!

ব্রেনের ক্ষয়

প্রতিনিয়ত চেপে ধরা হতাশা এবং মানসিক অবসাদ মস্তিষ্ক সঙ্কুচিত করে তোলে। আমরা আধুনিক যে ফাস্টফুড খাই তাতে ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড থাকে না। এটি মস্তিষ্কের জন্য অতীব প্রয়োজনীয়। নিয়মিত এই ধরনের খাবার খেলে মস্তিষ্ক সঙ্কুচিত হয়ে যায়।

এই আধুনিক যুগে আমরা একসাথে অনেকগুলো কাজ করতে অভ্যস্ত। কিন্তু মস্তিষ্ক একসাথে দুটি কাজে মনোযোগ দিতে পারে না। ফলে কী হচ্ছে? চটজলদি একটি কাজ সমাধা করে অন্য কাজ মনোযোগ দিতে হচ্ছে। ফলে মনোযোগের সময়সীমা, সক্ষমতা, এমনকি দীর্ঘকালীন স্মৃতি কমে যাচ্ছে আমাদের।

২০০০ সালের দিকে মানুষের মনোযোগের সময়সীমা ছিলো ১২ সেকেন্ড; এখন সেটা কমে ৮ সেকেন্ডে নেমে আসছে।

যখন প্রয়োজনীয় পুস্টি পায় না তখন মস্তিষ্ক কোষগুলো নিজদের ধ্বংস করে ফেলে। আমরা যখন অতিরিক্ত পরিমাণে খাবার নিয়ন্ত্রণ করি, যেটাকে সবাই ডায়েট বলে, তখন এটা বেশি ঘটে। সুতরাং ডায়েট করার আগে সতর্ক থাকুন।

মস্তিষ্ক নিয়ে প্রচলিত ভ্রান্ত ধারণা

মস্তিষ্ক নিয়ে সবচেয়ে প্রচলিত কথাগুলোর একটি হচ্ছে, আমরা আমাদের মস্তিষ্কের ১০ ভাগ ব্যবহার করি। কথাটি সম্পূর্ণ ভুল। আমরা আমাদের মস্তিষ্কের পুরোটাই ব্যবহার করি। এমনকি ঘুমের সময়ও আমাদের মস্তিষ্ক কার্যকর থাকে। তবে হ্যাঁ, আমরা চর্চার মাধ্যমে আমাদের মস্তিষ্কের সক্ষমতা বাড়াতে পারি।

অ্যালকোহল আমাদের মস্তিষ্কের নিউরনকে ধ্বংস করে না। তবে অতিরিক্ত অ্যালকোহল মস্তিষ্ক কোষের নিউরনের সাথে থাকা কানেকটিভ টিস্যুকে ধ্বংস করে। আরেকটি ব্যাপার আছে। আপনি যদি আগের দিন পার্টিতে গিয়ে মাতাল হয়ে বাড়ি ফিরে ঘুম থেকে উঠে ভাবেন, “আরে তাই তো! কাল কী করেছিলাম মনে পড়ছে না কেন? কী মুশকিল!” এর মানে এই নয় যে, আপনি গতদিনের স্মৃতি ভুলে গেছেন। এর কারণ ভিন্ন। দেখা গেছে, অ্যালকোহলিক মস্তিষ্ক নতুন কিছু সঠিকভাবে শিখতে পারে না।

মোজার্ট শুনলে মস্তিষ্কের ক্ষমতা বেড়ে যায়- প্রচলিত একটি কথা। শুধু মোজার্ট নয়; এ ধরনের সকল সুরই মস্তিষ্কের ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

বলা হয়ে থাকে, মস্তিষ্কে প্রায় ১০ হাজার মাইল লম্বা রক্তনালী রয়েছে। কথাটি অতিরঞ্জিত। সঠিক হিসেবে এটা ৪০০ মাইলের মত। এটাও কিন্তু একেবারে কম নয়।

স্মৃতি

আমরা যখন একটি কাজ করি সেটি মস্তিষ্কের বিভিন্ন অংশ একসাথে মিলে করে। সম্পূর্ণ কাজটি কয়েকটি অংশে ভাগ হয়ে বিভিন্ন অংশে সম্পন্ন হয় এবং শেষে একটি একক কাজ হিসেবে আউটপুট দেয়। আমাদের মস্তিষ্ক পূর্ণতা পাওয়ার পরপরই বুড়ো হতে শুরু করে, অর্থাৎ কম-বেশি পঁচিশ বছরের পর থেকে। সেই হিসেবে বলতে গেলে সবচেয়ে বেশি ক্ষমতাধর মস্তিষ্ক এই পঁচিশ বছর বয়সে পাওয়া যায়।

হিপোক্যাম্পাস; source: buzzkeys.com

তবে তার পরে যে মানুষ কোনো কাজে সর্বোচ্চ পরিমাণে নৈপুণ্য দেখাতে পারে না, তা নয়। যেমন মানুষের শব্দজ্ঞান সবচেয়ে পূর্ণতা পায় প্রায় ৭২ বছর বয়সে। দেখাই যাচ্ছে, মস্তিষ্কের দক্ষতার পেছনে অভিজ্ঞতার একটি বড় অবদান রয়েছে।

পৃথিবীতে মিস আর্থ, মিস ইউনিভার্স এর পাশাপাশি আরেকটি প্রতিযোগিতা হয়। সেখানে যাচাই করা হয় কার স্মৃতি সবচেয়ে বেশি প্রখর। এই প্রতিযোগিতার চ্যাম্পিয়নরা কিন্তু জন্মসূত্রে মহা স্মৃতিধর না। এটি তাদের চর্চা এবং কৌশলের ফলাফল। বুঝতেই পারছেন কী বলত চাইছি? হ্যাঁ, ঠিকই ধরেছেন। আপনি চাইলে হতে পারেন দারুণ স্মৃতিশক্তির অধিকারী।

আমাদের প্রায়শই প্রচণ্ড মাথা ব্যথা করে। বিশ্বাস করতে কষ্ট হলেও এটা সত্যি যে, মস্তিষ্ক নিজে নিজের ব্যথা অনুভব করতে পারে না! সেই কারণে একজন সার্জন রোগীকে জাগিয়ে রেখেই মস্তিষ্কে অপারেশন করতে পারে। তাহলে ব্যথা অনুভূত হয় কীভাবে? এই ব্যথা মূলত আশেপাশের মাথার ত্বক, হাড়ের গিঁট, সাইনাস, মাংসপেশিতে থাকা স্নায়ু উত্তেজনার ফলে।

অন্তর্মুখী এবং বহির্মুখী মানুষের মস্তিষ্কের প্যাটার্ন কিন্তু আলাদা। যারা অন্তর্মুখী তাদের মস্তিষ্কে গ্রে-ম্যাটারের পরিমাণ বেশি। আর যারা বহির্মুখী তাদের মস্তিষ্কে ডোপামিন লেভেল বেশি কার্যকর।

তুলনা

কম্পিউটার থেকে এগিয়ে আছে মস্তিষ্ক; source: tbn-tv.com

বিভিন্ন সময়ে যত তথ্য-প্রযুক্তিগত বৈজ্ঞানিক আবিষ্কার হয়েছে তাদের সাথে মস্তিষ্কের তুলনা হয়েছে। এভাবে তাকে সেই লম্বা সময় ধরে পরীক্ষা দিয়ে আসতে হয়েছে, কে বেশি দক্ষ? ঘড়ি নাকি মস্তিষ্ক? কম্পিউটার নাকি মস্তিষ্ক? ইন্টারনেট নাকি মস্তিষ্ক?

সুখের কথা হলো, প্রতিবারই কেল্লাফতে করেছে আমাদের মস্তিষ্কই।

আমাদের মস্তিষ্কের ধারণক্ষমতা কত? কয়েক গিগাবাইট কিংবা টেরাবাইট হবে- এমন ভাবছেন তো? তাহলে ভুল ভাবছেন। আমাদের মস্তিষ্কের কোনো মেমোরি কার্ডের মতো সীমাবদ্ধতা নেই। অর্থাৎ কখনো আমাদের মস্তিষ্ক স্মৃতিতে পরিপূর্ণ হয়ে শেষ  হয়ে যাবে না! সুতরাং যদি এমন কেউ থেকে থাকেন, যারা ফুরিয়ে যাওয়ার ভয়ে অলস বসে থাকেন, তাহলে কাজে নেমে পড়ুন। যত ইচ্ছা ব্যবহার করুন তাকে।

ফিচার ইমেজ- factretriever.com

Related Articles