শুরু হয়ে গেছে ফুটবল বিশ্বকাপ। বৈশ্বিক এই টুর্নামেন্টকে বলা হয় দ্য গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ। আগামী এক মাস পুরো পৃথিবী বুঁদ হয়ে থাকবে ফুটবল মাদকতায়। পৃথিবীবাসীর এই নেশা কিন্তু সহসাই তৈরি হয়নি। এই ইতিহাস প্রোথিত আছে আজ থেকে ৮৮ বছর আগের পৃথিবীতে। ১৯৩০ সালের ১৩ জুলাই যে মহারণ শুরু হয়, তার বহমানতা আজও বহমান। চলুন, ইতিহাসের পথ ধরে ঘুরে আসি সেই খেলাগুলোর রেকর্ড কর্নার থেকে, যাদের উপক্রমণিকায় এই বৈশ্বিক প্রতিযোগিতার প্রাণসঞ্চার হতো। আজ থাকছে ধারাবাহিক দুই পর্বের প্রথম পর্ব।

১৯৩০ বিশ্বকাপ, উরুগুয়ে 

এটি ছিল প্রথম ফুটবল বিশ্বকাপ। মোট ১৩টি দল চারটি গ্রুপে ভাগ হয়ে অংশ নেয়। গ্রুপ এক গঠিত হয় চারটি দল নিয়ে, বাকি তিনটিতে তিনটি করে নয়টি দল। তিনটি স্টেডিয়ামে মোট আঠারোটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয় আর বিশ্ববাসী উপভোগ করে ৭০টি গোল। যুগপৎ দুটি ম্যাচ দিয়ে উদ্বোধন হয় ইতিহাসের প্রথম বিশ্বকাপের।

প্রথম বিশ্বকাপের অফিসিয়াল পোস্টার; Image source: fifa.com 

ফ্রান্স বনাম মেক্সিকো

গ্রুপ: এক
তারিখ: ১৩ জুলাই
স্টেডিয়াম: পসিটস স্টেডিয়াম (মন্টিভিডিও)
দর্শক সংখ্যা: ৪, ৪৪৪
ফলাফল: ফ্রান্স ৪ - মেক্সিকো ১
গোলদাতা

ফ্রান্স: লুসি লরাঁ (১৯'), মার্সেল ল্যাংগিয়ে (৪০'), আন্দ্রে ম্যাসকিনো (৪৩', ৮৭')
মেক্সিকো: জুয়ান কারেনো (৭০')

রেফারি: ডমিঙ্গো লমবার্ডি (উরুগুয়ে)
সহকারী রেফারি: অঁরি ক্রিসটোফ বেলজিয়াম) ও গিলবার্তো রেগো (ব্রাজিল)

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বনাম বেলজিয়াম

গ্রুপ: চার
তারিখ: ১৩ জুলাই
স্টেডিয়াম: সেন্ট্রাল পার্ক স্টেডিয়াম (মন্টিভিডিও)
দর্শক সংখ্যা: ১৮,৩৪৬
ফলাফল: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ৩ - বেলজিয়াম ০

গোলদাতা

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র: বার্ট ম্যাঘি (২৩'), থমাস ফ্লোরি (৪৫') ও বার্ট্রান্ড পাতেনদে (৬৯')

বেলজিয়ামের এক খেলোয়াড় যুক্তরাষ্ট্রের গোলদাতা বার্টের কাছ থেকে বল কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা করছেন; Image source: Popper Foto

রেফারি: জোসে ম্যাসিয়াস (আর্জেন্টিনা)
সহকারী রেফারি: ফ্রান্সিসকো মাতেউচ্চি (উরুগুয়ে) ও আলবার্তো অয়ার্নকেন (চিলি) 

১৯৩৪ বিশ্বকাপ, ইতালি

ফ্যাসিবাদী নেতা বেনিতো মুসোলিনির ইতালিতে এই বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয়েছিল। মূল বিশ্বকাপে মোট ১৬টি দল নক আউট ভিত্তিতে অংশ নেয়। গতানুগতিক গ্রুপবিহীন এই টুর্নামেন্টে মোট ১৭টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয় ইতালির আটটি স্টেডিয়ামে। মোট গোল সংখ্যা আগের বিশ্বকাপের মতোই ৭০টি। ২৭ মে, রবিবার একইসাথে আটটি ভেন্যুতে আটটি ম্যাচ দিয়ে উদ্বোধন হয় ১৯৩৪ ইতালি বিশ্বকাপের।

১৯৩৪ বিশ্বকাপের অফিসিয়াল পোস্টার; Image source: fifa.com

ফ্রান্স বনাম অস্ট্রিয়া

স্টেডিয়াম: তুরিন স্টেডিয়াম (তুরিন)
দর্শক সংখ্যা: ১৬,০০০
ফলাফল: অস্ট্রিয়া ৩ -  ফ্রান্স ২

গোলদাতা

অস্ট্রিয়া: ম্যাথিয়াস সিন্ডলার (৪৪'), টনি শাল (৯৩'), জোসেফ বাইকান (১০৯')
ফ্রান্স: জন নিকোলাস (১৮'), জর্জ ভেরিয়েস্ট (১১৬' পেনাল্টি গোল)

ফরাসি গোলরক্ষক অ্যালেক্সকে ফাঁকি দিয়ে জালে জড়িয়ে যাচ্ছে অস্ট্রিয়ার জয়সূচক গোলটি; Image source: Popper Foto

রেফারি: জোহাননেস ভ্যান মুরসেল (নেদারল্যান্ড)
সহকারী রেফারি: কামিলো কাইরনি (ইতালি) ও লুইস আন্দ্রে বার্ট (বেলজিয়াম) 

হাঙ্গেরি বনাম মিশর

স্টেডিয়াম: জর্জিও অ্যাস্কারেলি (নেপলস)
দর্শক সংখ্যা: ৯,০০০
ফলাফল: হাঙ্গেরি ৪ - মিশর ২

গোলদাতা

হাঙ্গেরি: পাল তেলেকি (১১'), গেজা টল্ডি (৩১' ও ৬১'), জেনো ভিন্সজ (৫৩')
মিশর: আবদেল রহমান ফাওজি (৩৫' ও ৩৯')

রেফারি: রিনালদো বার্লাসিনা (ইতালি)
সহকারী রেফারি: জেনেরসো দাত্তিলো (ইতালি) ও ওতেল্লো সাসি (ইতালি)

সুইজারল্যান্ড বনাম নেদারল্যান্ড

স্টেডিয়াম: সান সিরো (মিলান)
দর্শক সংখ্যা: ৩৩,০০০
ফলাফল: সুইজারল্যান্ড ৩ - নেদারল্যান্ড ২

গোলদাতা

সুইজারল্যান্ড: লিওপোল্ড কিয়েলহোলজ্ (৭', ৪৩'), আন্দ্রে অ্যাবেগ্লেন (৬৬')
নেদারল্যান্ড: কিক স্মিট (২৯'), লীন ভেন্তে (৬৯')

রেফারি: ইভান হেনিং একলিন্ড (সুইডেন)
সহকারী রেফারি: অ্যালোইস বেরানেক (অস্ট্রিয়া) ও ফেরুচ্চিও বনিভেন্তো (ইতালি) 

আর্জেন্টিনা বনাম সুইডেন  

স্টেডিয়াম: লিত্তোরালে (বোলনিয়া)
দর্শক সংখ্যা: ১৪,০০০
ফলাফল: সুইডেন ৩ - আর্জেন্টিনা ২

গোলদাতা

সুইডেন: ভেন জোনাসসন (৯', ৬৭'), নুট ক্রুন (৭৯')
আর্জেন্টিনা: আর্নেস্তো বেলিস (৪'), আলবার্তো গ্যালাতেও (৪৮')

সুইডিশ গোলরক্ষক অ্যান্ডার্স রিডবার্গ পাঞ্চ করে বল আর্জেন্টিনার অধিনায়ক আলফ্রেডোর দখল থেকে মুক্ত করছেন; Image source: Popper Foto

রেফারি: ইউজেন ব্রাউন (অস্ট্রিয়া)
সহকারী রেফারি: আলবিনো কারারো (ইতালি) ও জুসেপ্পে তুরবিয়ানি (ইতালি)

জার্মানি বনাম বেলজিয়াম

স্টেডিয়াম: জিয়োভান্নি বার্তা (ফ্লোরেন্স)
দর্শক সংখ্যা: ৮,০০০
ফলাফল: জার্মানি ৫ - বেলজিয়াম ২

গোলদাতা 

জার্মানি: স্টানিসলাস কোবিয়ের্স্কি (২৫'), অটো সিফ্লিং (৪৯'), এডমুন্ড কোনেন (৬৬', ৭০', ৮৭')
বেলজিয়াম: বার্নার্ড ভুরহুফ (২৯', ৪৩')

রেফারি: ফ্রান্সেসকো মাত্তেয়া (ইতালি)
সহকারী রেফারি: মেলান্দ্রি আরমেনেগিল্ডো (ইতালি) ও বাখ্‌ত্ জ্যাকস (ফ্রান্স)

ব্রাজিল বনাম স্পেন

স্টেডিয়াম: লুইগি ফেরারিস (জেনোয়া)
দর্শক সংখ্যা: ২১,০০০
ফলাফল: স্পেন ৩ - ব্রাজিল ১

গোলদাতা

স্পেন: ইরারাগরি (১৮' পেনাল্টি গোল, ২৪'), ইসিদ্রো ল্যাঙ্গারা (২৯') 
ব্রাজিল: লিওনিডাস (৫৪')

ব্রাজিলিয়ান আক্রমণ রুখে দেওয়ার একটি মুহূর্তে স্প্যানিশ রক্ষণদুর্গ; Image source: Popper Foto

রেফারি: আলফ্রেড বিয়ারলেম (জার্মানি)
সহকারী রেফারি: এত্তোরে কারমিনাতি (ইতালি) ও মিহালি ইভানিকসিক্‌স (হাঙ্গেরি)

চেকোস্লোভাকিয়া বনাম রোমানিয়া

স্টেডিয়াম: লিত্তোরিও (ত্রিয়েস্তে)
দর্শক সংখ্যা: ৯,০০০
ফলাফল: চেকোস্লোভাকিয়া ২ - রোমানিয়া ১

গোলদাতা

চেকোস্লোভাকিয়া: অ্যান্তোনিন পাক (৫০'), ওল্ডরিচ্ নেজেড্লি (৬৭')
রোমানিয়া: ইস্তেভান ডোবে (১১')

রেফারি: জন ল্যাঙ্গেনাস (বেলজিয়াম)
সহকারী রেফারি: জুসেপ্পে স্কার্পি (ইতালি) ও রাফায়েলে স্কোরযনি (ইতালি)

ইতালি বনাম মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

স্টেডিয়াম: ন্যাসিওনাল পিএনএফ (রোম)
দর্শক সংখ্যা: ২৫,০০০
ফলাফল: ইতালি ৭ - মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১

গোলদাতা

ইতালি: অ্যাঞ্জেলো স্কিয়াভিয়ো (১৮', ২৯', ৬৪'), রাইমুন্ডো ওরসি (২০', ৬৯'), জিওভান্নি ফেরারি (৬৩'), জুসেপ্পে মিয়াজ্জা (৯০')
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র: আল্ডো ডোনেল্লি (৫৭')

রেফারি: রেনে মার্সেট (সুইজারল্যান্ড)
সহকারী রেফারি: পেদ্রো এসকারতিন (স্পেন) ও বহুমিল জেনিসেক (চেকোস্লোভাকিয়া)

১৯৩৮ বিশ্বকাপ, ফ্রান্স

এই বিশ্বকাপই ছিল দ্বিতীয় মহাযুদ্ধের আগে অনুষ্ঠেয় ফুটবলের সর্বশেষ বৈশ্বিক আসর। মোট ১৫টি দল (প্রথমে ১৬টিই ছিল, কিন্তু পরে অস্ট্রিয়াকে জার্মানির সাথে অন্তর্ভুক্ত করানো হয়) নক আউট ভিত্তিতে অংশ নেয়। উরুগুয়ে, আর্জেন্টিনা ও স্পেন ছিল না এই বিশ্বকাপে। মোট ১৮টি ম্যাচ হয় ফ্রান্সের দশটি স্টেডিয়ামে। ৪ জুন সুইজারল্যান্ড বনাম জার্মানির খেলা দিয়ে শুরু হওয়া এই বিশ্বকাপ চলে মাত্র ১৬ দিন। তবে ম্যাচ প্রতি গড়ে ৪.৭ গোল হওয়া এই বিশ্বকাপ ৮৪টি গোলের দেখা পায়। 

১৯৩৮ ফ্রান্স বিশ্বকাপের অফিসিয়াল পোস্টার; Image source: fifa.com


জার্মানি বনাম বনাম সুইজারল্যান্ড*

স্টেডিয়াম: পাক দ্যে ফাঁসে (প্যারিস)
দর্শক সংখ্যা: ২৭,১৫২
ফলাফল: সুইজারল্যান্ড ১ - জার্মানি ১

গোলদাতা

সুইজারল্যান্ড: আন্দ্রে অ্যাবেগ্লেন (৪৩')
জার্মানি: জোসেফ গচেল (২৯')

রেফারি: জন ল্যাঙ্গেনাস (বেলজিয়াম)
সহকারী রেফারি: মাখেনকো পল (ফ্রান্স) ও জোহাননেস ভ্যান মুরসেল (নেদারল্যান্ড)

তখন হলুদ বা লাল কার্ডের প্রচলন ছিল না। তবে এই উদ্বোধনী ম্যাচে জার্মানির একজন ফুটবলারকে বহিষ্কার করা হয়। খেলার ৯৬ মিনিটে (অতিরিক্ত সময়ে) জার্মানির হান্স পেসারকে বহিষ্কার করেন রেফারি। 

* পরবর্তী রাউন্ডে যাওয়া নিশ্চিত করতে একই মাঠে জার্মানির সাথে সুইজারল্যান্ডের ৯ জুন আবারো দেখা হয়। সেই খেলায় জার্মানি ৪ - ২ গোলে পরাজিত হয়ে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নেয়। 

১৯৫০ বিশ্বকাপ, ব্রাজিল 

এই বিশ্বকাপ ছিল দ্বিতীয় মহাযুদ্ধ পরবর্তী প্রথম বিশ্বকাপ। এই বিশ্বকাপে মোট ১৫টি দল চারটি গ্রুপে ভাগ হয়ে অংশ নেয়। গ্রুপ চারে প্রাথমিকভাবে থাকে তিনটি দল, বাকি তিনটিতে চারটি করে ১২টি দল। কিন্তু ভারত ও ফ্রান্স বিশ্বকাপ বর্জন করায় শেষতক দলের সংখ্যা দাঁড়ায় ১৩। গ্রুপ তিনে ভারতকে খালি পায়ে খেলতে না দেওয়ার কারণে এই গ্রুপে দলের সংখ্যা হয় তিন আর গ্রুপ চারে ফ্রান্সের না খেলার কারণে দলের সংখ্যা হয় মাত্র দুই। সবেমাত্র ২২টি ম্যাচ হয় ৬টি স্টেডিয়ামে; মোট গোলসংখ্যা ৮৮। উদ্বোধনী ম্যাচ ২৪ জুন অনুষ্ঠিত হয়।

ব্রাজিলের বিখ্যাত মারাকানা স্টেডিয়াম; Image source: Arquivo Nacional

ব্রাজিল বনাম মেক্সিকো

স্টেডিয়াম: মারাকানা (রিও ডি জেনিরো)
দর্শক সংখ্যা: ৮১,৬৪৯

উদ্বোধনী ম্যাচের দর্শকদের একাংশ; Image source: Popperfoto

গ্রুপ: এক

ফলাফল: ব্রাজিল ৪ - মেক্সিকো ০

গোলদাতা

ব্রাজিল: আদেমির (৩০', ৭৯'), জায়ের (৬৫'), বালতাজার (৭১')

রেফারি: জর্জ রিডার (ইংল্যান্ড)
সহকারী রেফারি: বেঞ্জামিন গ্রিফিথস (ওয়েলস) ও জর্জ মিচেল (স্কটল্যান্ড)

১৯৫৪ বিশ্বকাপ, সুইজারল্যান্ড

সুইজারল্যান্ড বিশ্বকাপে মোট ১৬টি দল চারটি গ্রুপে ভাগ হয়ে অংশ নেয়। ২৬ ম্যাচে রেকর্ড ৫.৪ গড়ে মোট গোল হয় ১৪০টি; ৬টি স্টেডিয়ামে খেলাগুলো অনুষ্ঠিত হয়। ১৬ জুন একই সময়ে ভিন্ন ভিন্ন ভেন্যুতে গ্রুপ এক ও তিন-এর দুটি করে চারটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়।

১৯৫৪ বিশ্বকাপের অফিসিয়াল পোস্টার; Image source: fifa.com

ব্রাজিল বনাম মেক্সিকো

স্টেডিয়াম: চার্মিয়ে স্টেডিয়াম (জেনেভা)
দর্শক সংখ্যা: ১৩,৪৭০

খেলার একটি মুহূর্ত; Image source: Bob Thomas/Popperfoto

গ্রুপ: এক
ফলাফল: ব্রাজিল ৫ - মেক্সিকো ০

খেলায় একচেটিয়া প্রাধান্য ছিল ব্রাজিলের; Image source: ullstein bild

গোলদাতা

ব্রাজিল: বালতাজার (২৩'), দিদি (৩০'), পিঙ্গা (৩৪', ৪৩'), জুলিনহো (৬৯')

রেফারি: পল ওয়াইসলিং (সুইজারল্যান্ড)
সহকারী রেফারি: আর্নেস্ট শোনলজার (সুইজারল্যান্ড) ও জোসে দা কস্তা ভিয়েইরা (পর্তুগাল)

উরুগুয়ে বনাম চেকোস্লোভাকিয়া

স্টেডিয়াম: ভ্যাঙ্কডর্ফ স্টেডিয়াম (বার্ন)
দর্শক সংখ্যাঃ ২০,৫০০
গ্রুপ: তিন
ফলাফল: উরুগুয়ে ২ - চেকোস্লোভাকিয়া ০

গোলদাতা

উরুগুয়ে: অস্কার মিগেজ (৭১'), জুয়ান শিয়াফিনো (৮৪')

রেফারি: আর্থার এডওয়ার্ড এলিস (ইংল্যান্ড)
সহকারী রেফারি: উইলিয়াম লিং (ইংল্যান্ড) ও ওয়ার্নার শিকার (সুইজারল্যান্ড)

অস্ট্রিয়া বনাম স্কটল্যান্ড

স্টেডিয়াম: হার্ডটার্ম স্টেডিয়াম (জুরিখ)
দর্শক সংখ্যা: ২৫,০০০
গ্রুপ: তিন
ফলাফল: অস্ট্রিয়া ১ - স্কটল্যান্ড ০

গোলদাতা

অস্ট্রিয়া: এরিক প্রব্স্ট (৩৩')

রেফারি: লরেন্ট ফ্রাঙ্কেন (বেলজিয়াম)
সহকারী রেফারি: মারিও ভিয়ানা (ব্রাজিল) ও জোসেফ গাল্ডে (সুইজারল্যান্ড)

ফ্রান্স বনাম যুগোস্লাভিয়া

স্টেডিয়াম: লা পঁতাইস স্টেডিয়াম (লুজান)
দর্শক সংখ্যা: ১৬,০০০
গ্রুপ: এক
ফলাফল: যুগোস্লাভিয়া ১ - ফ্রান্স ০

গোলদাতা

যুগোস্লাভিয়া: মাইলোস মিলুটিনোভিক (১৫')

রেফারি: বেঞ্জামিন গ্রিফিথস (ওয়েলস)
সহকারী রেফারি: রেনে বমবার্গার (সুইজারল্যান্ড) ও মানুয়েল আসেনসি (স্পেন)

১৯৫৮ বিশ্বকাপ, সুইডেন

১৬টি দল চারটি গ্রুপে ভাগ হয়ে অংশ নেয়। ৩৫টি ম্যাচ হয় সুইডেনের ১২টি স্টেডিয়ামে। মোট গোলসংখ্যা ৩.৬ গড়ে ১২৬টি। ৮ জুন একই সময়ে ভিন্ন ভিন্ন ভেন্যুতে সব গ্রুপের দুটি করে মোট আটটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়।

১৯৫৮ বিশ্বকাপের অফিসিয়াল পোস্টার; Image source: fifa.com

ব্রাজিল বনাম অস্ট্রিয়া

স্টেডিয়াম: রিমনার্সভ্যালেন (উদেভাল্লা)
দর্শক সংখ্যা: ১৭,৭৮৮
গ্রুপ: চার
ফলাফল: ব্রাজিল ৩ - অস্ট্রিয়া ০

গোলদাতা

ব্রাজিল: আলতাফিনি (৩৮', ৮৯') ও নিল্টন স্যান্তোস (৪৯')

রেফারি: মরিস গিগে (ফ্রান্স)

সোভিয়েত ইউনিয়ন বনাম ইংল্যান্ড

স্টেডিয়াম: নিয়া উল্লেভি (গথেনবার্গ)
দর্শক সংখ্যা: ৪৯,৩৪৮
গ্রুপ: চার
ফলাফল: সোভিয়েত ইউনিয়ন ২ - ইংল্যান্ড ২

গোলদাতা

সোভিয়েত ইউনিয়ন: নিকিতা সিমোনিয়ান (১৩'), আলেকজান্ডার ইভানভ (৫৫')
ইংল্যান্ড: ডেরেক কেভান (৬৬'), টম ফিনি (৮৫'; পেনাল্টি থেকে)

রেফারি: ইস্তেভান সল্ট (হাঙ্গেরি)

সুইডেন বনাম মেক্সিকো

স্টেডিয়াম: রাসুন্দা (সলনা)
দর্শক সংখ্যা: ৩৪,১০৭
গ্রুপ: তিন

সুইডেন বনাম মেক্সিকো ম্যাচের একটি মুহূর্ত; Image source: fifa.com

ফলাফল: সুইডেন ৩ - মেক্সিকো ০

গোলদাতা

সুইডেন: সিমনসন (১৭', ৬৪'), লিডহোম (৫৭'; পেনাল্টি থেকে)

রেফারি: নিকোলাই ল্যাটিশেভ (সোভিয়েত ইউনিয়ন)

হাঙ্গেরি বনাম ওয়েলস

স্টেডিয়াম: জার্নভ্যালেন (স্যান্ডভিকেন)
দর্শক সংখ্যা: ১৫,৩৪৩
গ্রুপ: তিন
ফলাফল: হাঙ্গেরি ১ - ওয়েলস ১

গোলদাতা

হাঙ্গেরি: বজসিক (৫')
ওয়েলস: জন চার্লস (২৭')

রেফারি: জোসে মারিয়া কোডেসাল (উরুগুয়ে)

ফ্রান্স বনাম প্যারাগুয়ে

স্টেডিয়াম: ইদ্রোটস্পারকেন (নরকৌপিং)
দর্শক সংখ্যা: ১৬,৫১৮
গ্রুপ: দুই
ফলাফল: ফ্রান্স ৭ - প্যারাগুয়ে ৩

গোলদাতা

ফ্রান্স: জ্য ফঁন্টেইন (২৪', ৩০', ৬৭'), পিয়াঁটনি (৫২'), উইসনিয়েস্কি (৬১'), রেমন্ড কোপা (৭০'), জন ভিনসেন্ট (৮৩')
প্যারাগুয়ে: ফ্লোরেন্সিও আমারিয়া (২০', ৪৪' দ্বিতীয় গোল পেনাল্টি থেকে), জর্জ রোমেরো (৫০')

রেফারি: জুয়ান গ্যারে (স্পেন)

উত্তর আয়ারল্যান্ড বনাম চেকোস্লোভাকিয়া

স্টেডিয়াম: ঔরজান্স ভ্যাল (হ্যাল‌্মস্টাড)
দর্শক সংখ্যা: ১০,৬৪৭
গ্রুপ: এক
ফলাফল: উত্তর আয়ারল্যান্ড ১ - চেকোস্লোভাকিয়া ০

গোলদাতা

উত্তর আয়ারল্যান্ড: উইলবার কুশ (২০')

রেফারি: ফ্রিট্জ্ সেইপেল্ট (অস্ট্রিয়া)

আর্জেন্টিনা বনাম পশ্চিম জার্মানি

স্টেডিয়াম: মালমৌ স্টেডিয়াম (মালমৌ)
দর্শক সংখ্যা: ৩২,০০০
গ্রুপ: এক

আর্জেন্টিনার পেনাল্টি এলাকায় দুই দলের বল দখলের লড়াই; Image source: Horstmüller/ullstein bild

ফলাফল: পশ্চিম জার্মানি ৩ - আর্জেন্টিনা ১

গোলদাতা

পশ্চিম জার্মানি: হেলমুট রান (৩২', ৭৯'), উভে সীলার (৪০')
আর্জেন্টিনা: ওরেস্তে করবাত্তা (২')

রেফারি: জেমস লিফি (ইংল্যান্ড)

যুগোস্লাভিয়া বনাম স্কটল্যান্ড

স্টেডিয়াম: অ্যারোসভ্যালেন স্টেডিয়াম (ভ্যাসটের‍াস)
দর্শক সংখ্যা: ৯,৫৯১
গ্রুপ: দুই
ফলাফল: যুগোস্লাভিয়া ১ - স্কটল্যান্ড ১

গোলদাতা

যুগোস্লাভিয়া: আলেকজান্ডার পেটাকোভিক (৬')
স্কটল্যান্ড: জিমি মুরে (৪৯')

রেফারি: পল ওয়াইসলিং (সুইজারল্যান্ড)

১৯৬২ বিশ্বকাপ, চিলি

সপ্তম ফিফা বিশ্বকাপ। অংশগ্রহণকারী দলের সংখ্যা ১৬, খেলা হয়েছে ৩২ ম্যাচ, ২.৮ গড়ে ৮৯টি গোল। ৩০ মে একই সাথে ভিন্ন ভিন্ন ভেন্যুতে চারটি গ্রুপের একটি করে ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়।

আর্জেন্টিনা বনাম বুলগেরিয়া

স্টেডিয়াম: এল তেনিয়েন্তে (রাঙ্কাগুয়া)
দর্শক সংখ্যাঃ ৭,১৩৪
গ্রুপ: চার
ফলাফল: আর্জেন্টিনা ১ - বুলগেরিয়া ০

হেক্টরের গোলে খেলার শুরুতেই (৪ মিনিটে) আর্জেন্টিনা এগিয়ে যায়; Image source: Haynes Archive/Popperfoto

গোলদাতা

আর্জেন্টিনা: হেক্টর (৪')

রেফারি: জুয়ান গ্যারে (স্পেন)

ব্রাজিল বনাম মেক্সিকো

স্টেডিয়াম: সাউসালিতো (ভিনা দেল মার)
দর্শক সংখ্যা: ১০,৪৮৪
গ্রুপ: তিন
ফলাফল: ব্রাজিল ২ - মেক্সিকো ০

মেক্সিকোর জালে ব্রাজিলের গোল; Image source: Popperfoto

গোলদাতা

ব্রাজিল: মারিও জাগালো (৫৬') ও পেলে (৭৩')

রেফারি: গটফ্রাইড ডিয়েন্সট্ (সুইজারল্যান্ড)

চিলি বনাম সুইজারল্যান্ড

স্টেডিয়াম: জুলিও মার্টিনেজ প্রাদানোস স্টেডিয়াম (সান্তিয়াগো)
দর্শক সংখ্যাঃ ৬৫,০০৬
গ্রুপ: দুই
ফলাফল: চিলি ৩ - সুইজারল্যান্ড ১

গোলদাতা

চিলি: লিওনেল সানচেজ (৪৪', ৫৫') ও রামিরেজ (৫১')
সুইজারল্যান্ড: রল্‌ফ উথরিক (৬')

রেফারি: পল গ্যাস্টন (ফ্রান্স)

উরুগুয়ে বনাম কলম্বিয়া

স্টেডিয়াম: কার্লোস ডিটবর্ন (আরিকা)
দর্শক সংখ্যা: ৭,৯০৮
গ্রুপ: এক
ফলাফল: উরুগুয়ে ২ - কলম্বিয়া ১

গোলদাতা

উরুগুয়ে: লুইস কুবিয়া (৫৬') ও জোসে সাসিয়া (৭৫')

কলম্বিয়া: ফ্রান্সিসকো জুলুয়াগা (১৯'; পেনাল্টি থেকে)

রেফারি: অ্যান্ডর ডরোগি (হাঙ্গেরি)

১৯৬৬ বিশ্বকাপ, ইংল্যান্ড

১৬টি দল চার গ্রুপে ভাগ হয়ে অংশ নেয়। ৩২টি ম্যাচে গোল হয় ৮৯টি। ইংল্যান্ডের ৮টি স্টেডিয়ামে ২০ দিনব্যাপী চলে অষ্টম বিশ্বকাপ টুর্নামেন্ট। এই বিশ্বকাপ মূলত প্রণিধানযোগ্য পর্তুগিজ ইউসেবিওর দুর্দান্ত ক্রীড়া নৈপুণ্য, প্রাথমিক পর্ব থেকেই ব্রাজিলের বাদ পড়ে যাওয়া আর ইংল্যান্ডের প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ জয়ের জন্য। এই বিশ্বকাপ থেকেই অফিসিয়ালি মাসকটের প্রচলন হয়। ইংল্যান্ড-উরুগুয়ের মধ্যকার প্রথম ম্যাচটি ১১ জুলাই অনুষ্ঠিত হয়।

১৯৬৬ বিশ্বকাপের অফিসিয়াল মাসকট উইলি। মূলত মাসকটের প্রচলন এই বিশ্বকাপ থেকেই শুরু হয়; Image source: fifa.com

ইংল্যান্ড বনাম উরুগুয়ে

স্টেডিয়াম: ওয়েম্বলি স্টেডিয়াম (লন্ডন)
দর্শক সংখ্যা: ৮৭,১৪৮

'পাখির চোখে' লন্ডনের ওয়েম্বলি স্টেডিয়াম; Image source: Central Press

গ্রুপ: এক
ফলাফল: ইংল্যান্ড ০ - উরুগুয়ে ০

মাঠে উরুগুয়ের এক আহত খেলোয়াড়ের চিকিৎসা চলছে; Image source: Cattani/Fox Photos/Hulton Archive

রেফারি: ইস্তেভান সল্ট (হাঙ্গেরি)
সহকারী রেফারি: তফিক বাখরামভ (সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন) ও দিমিতার রুমেনশেভ (বুলগেরিয়া)

১৯৭০ বিশ্বকাপ, মেক্সিকো

এটি ছিল উত্তর আমেরিকায় অনুষ্ঠিত প্রথম বিশ্বকাপ। এই বিশ্বকাপেই জয়ী হয়ে ব্রাজিল চিরতরে জুলে রিমে ট্রফি নিজেদের করে নেয়। এই বিশ্বকাপ থেকেই হলুদ ও লাল কার্ডের প্রচলন করা হয়। তবে ১৯৩৮ সালের ফ্রান্স বিশ্বকাপে সুইজারল্যান্ড বনাম জার্মানির উদ্বোধনী ম্যাচে জার্মানির এক খেলোয়াড়কে লাল কার্ড দেখানো হয়েছিল।

হুয়ানিতো- ১৯৭০ বিশ্বকাপের অফিসিয়াল মাসকট; Image source: fifa.com

১৬টি দল চারটি গ্রুপে ভাগ হয়ে ৫টি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত খেলায় অংশগ্রহণ করে। ৩২ ম্যাচে মোট গোলসংখ্যা ৯৫। ৩১ মে মেক্সিকো-সোভিয়েত ইউনিয়নের খেলা দিয়ে শুরু হয় নবম বিশ্বকাপ ফুটবল।

মেক্সিকো বনাম সোভিয়েত ইউনিয়ন

স্টেডিয়াম: অ্যাজটেক স্টেডিয়াম (মেক্সিকো সিটি)
দর্শক সংখ্যা: ১০৭,১৬০

লক্ষাধিক দর্শকের উপস্থিতি হয়েছিল সেদিনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে; Image source: Rolls Press/Popperfoto

গ্রুপ: এক
ফলাফল: মেক্সিকো ০ - সোভিয়েত ইউনিয়ন ০

রেফারি: কার্ট শেনশের (জার্মানি)
সহকারী রেফারি: কিথ ডানস্টান (বারমুডা) ও জন টেইলর (ইংল্যান্ড)

মেক্সিকো: এক; পেনা (১')
সোভিয়েত ইউনিয়ন: চার; গিভিলি নডিয়া (১'), লগোফেট (১'), আসাতিয়ানি (৩০'), লভশেভ (৩৪')

১৯৭৪ বিশ্বকাপ, পশ্চিম জার্মানি 

দুই বালক টিপ এবং টাপ, বিশ্বকাপের অফিসিয়াল মাসকট; Image source: pinterest

বিশ্বকাপে মোট ১৬টি দল চারটি গ্রুপে ভাগ হয়ে অংশ নেয়। ৯টি স্টেডিয়ামে মোট ৩৮টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। এই বিশ্বকাপে মোট গোলের সংখ্যা ৯৭টি। ১৩ জুন ব্রাজিল বনাম যুগোস্লাভিয়ার ম্যাচ দিয়ে শুরু হয় '৭৪ এর বিশ্বকাপ।

ব্রাজিল বনাম যুগোস্লাভিয়া

ম্যাচের আগে ব্রাজিল দল; Image source: S&G/PA Images
খেলা শুরুর প্রাক্বালে যুগোস্লাভিয়ার খেলোয়াড়েরা; Image source: S&G/PA Images

স্টেডিয়াম: ভাল্ডস্টাডিওন (ফ্রাঙ্কফুট)
দর্শক সংখ্যা: ৬২,০০০
গ্রুপ: দুই
ফলাফল: ব্রাজিল ০ - যুগোস্লাভিয়া ০

যুগোস্লাভিয়ার ব্লাঙ্কো ওব্লাক ও ব্রাজিলের লুইস পেরেইরার (ডানে) মধ্যে চলছে বল দখলের লড়াই; Image source: Rolls Press/Popperfoto

রেফারি: রুলডফ শ্যুরার (সুইজারল্যান্ড)

সহকারি রেফারি: ভিটাল লরা (বেলজিয়াম) ও লুইস পেস্তারিনো (আর্জেন্টিনা)

যুগোস্লাভিয়া: ব্রাঙ্কো ওব্লাক (১৭'), জোভান আকিমোভিচ (৪৯')

১৯৭৮ বিশ্বকাপ, আর্জেন্টিনা 

গোচিতো ছিল ১৯৭৮ বিশ্বকাপের অফিসিয়াল মাসকট; Image source: youtube.com

মোট ১৬টি দল চারটি গ্রুপে ভাগ হয়ে অংশ নেয়। ৩৮টি ম্যাচে সর্বমোট গোল হয় ১০২টি। খেলা হয় আর্জেন্টিনার ৬টি স্টেডিয়ামে। ১ জুন শুরু হয় বিশ্বকাপের একাদশ আসর।

পশ্চিম জার্মানি বনাম পোল্যান্ড

স্টেডিয়াম: মনুমেন্টাল স্টেডিয়াম (বুয়েন্‌স এইরেস)
দর্শক সংখ্যা: ৬৭,৫৭৯

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সময় মনুমেন্টাল স্টেডিয়াম; Image source: Wikimedia Commons

গ্রুপ: দুই
ফলাফল: পশ্চিম জার্মানি ০ - পোল্যান্ড ০

পোলিশ রক্ষণব্যূহ ভেদ করেও ফিশারের জার্মানি কাঙ্ক্ষিত গোলের দেখা পায়নি ১৯৭৮ বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচে; Image source: planetworldcup.com

রেফারি: নরবার্তো অ্যাঞ্জেল কোয়ারেজ্জা (আর্জেন্টিনা)

সহকারী রেফারি: আর্তুরো আন্দ্রেস ইথুরালডে (আর্জেন্টিনা) ও মিগেল কোমেসানা (আর্জেন্টিনা)

ফিচার ইমেজ: wallpaperswide.com

বিশেষ দ্রষ্টব্য

এখানে দুটি বিষয় লক্ষণীয়।
১. প্রতিটি খেলার বিস্তারিত বর্ণনা পোস্টের দীর্ঘসূত্রিতা বহুগুণে বাড়িয়ে দেবে। এখানে প্রতিটি খেলা সম্পর্কে ছোট্ট পরিসরে ধারণা দেবার চেষ্টা করা হয়েছে।
২. ব্যক্তির (মূলত খেলোয়াড় ও রেফারি) নামের বাংলা বানানের ব্যাপারে বিজ্ঞ পাঠককুলের যেকোনো প্রামাণ্য ও যৌক্তিক উপদেশ আন্তরিকতার সাথে গ্রহণ করা হবে।