আইসিসি বর্ষসেরা ক্রিকেটার কোহলি, বর্ষসেরা টেস্ট ক্রিকেটার স্মিথ

ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল প্রতিবছরের ন্যায় ২০১৭ সালেও বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ক্রিকেটারদের পুরস্কৃত করে। সবচেয়ে বেশি মর্যাদার স্যার গ্যারফিল্ড সোবার্স অ্যাওয়ার্ড জেতেন ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলি।

আইসিসি বর্ষসেরা ক্রিকেটার

২০১৭ সালের আইসিসি বর্ষসেরা ক্রিকেটারের অ্যাওয়ার্ড জিতেছেন বিরাট কোহলি। এছাড়া ২০১৭ সালের আইসিসি বর্ষসেরা টেস্ট এবং ওডিআই একাদশের অধিনায়ক নির্বাচিত করা হয় তাকে। আইসিসি বর্ষসেরা ওডিআই ক্রিকেটারের পুরস্কারও নিজের করে নেন বিরাট কোহলি। অ্যাওয়ার্ডের জন্য বিবেচিত সময় ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৬ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত বিরাট কোহলি ১৮ ম্যাচে ছয়টি দ্বিশতক সহ মোট আটটি শতক হাঁকিয়ে ৭৭.৮০ ব্যাটিং গড়ে ২,০২৩ রান করেছেন। টেস্ট ক্রিকেটে এই সময়ে তার চেয়ে বেশি রান কেউ করতে পারেনি। ওডিআইতেও তিনি নির্দিষ্ট সময়ে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক ছিলেন। কোহলি ৩১টি ওডিআইতে ৮২.৬৩ ব্যাটিং গড়ে ১,৮১৮ রান করেছেন। শতক হাঁকিয়েছেন সাতটি এবং অর্ধশতক নয়টি। টি-টুয়েন্টিতে ১৫৩ স্ট্রাইক রেটে ২৯৯ রান সংগ্রহ করেন। অভাবনীয় এক মৌসুম কাটিয়ে স্যার গ্যারফিল্ড সোবার্স অ্যাওয়ার্ড জিতে নেন বিরাট কোহলি।

আইসিসি বর্ষসেরা টেস্ট ক্রিকেটারের অ্যাওয়ার্ড জিতেছেন বিরাট কোহলি; Image Source – Getty Images

অ্যাওয়ার্ড জয়ের পর কোহলি বলেন, “আমাদের জন্য খুব সম্ভবত বিশ্ব ক্রিকেটে এটি সবচেয়ে বড় অ্যাওয়ার্ড। দুইজন ভারতীয় পরপর এই অ্যাওয়ার্ড জয়লাভ করাতে এটাকে আরও বিশেষ করেছে”। কোহলি আইসিসি এবং অন্যান্য ক্যাটাগরিতে পুরষ্কারপ্রাপ্তদেরকেও ধন্যবাদ জানান।

আইসিসি বর্ষসেরা টেস্ট ক্রিকেটার

২০১৬ সালে ভারতের রবীচন্দ্রন আশ্বিন বর্ষসেরা ক্রিকেটারের অ্যাওয়ার্ড জেতার পাশাপাশি বর্ষসেরা টেস্ট ক্রিকেটারও নির্বাচিত হয়েছিলেন। ২০১৭ সালে এর পুনরাবৃত্তি ঘটেনি। বর্ষসেরা টেস্ট ক্রিকেটারের সম্মাননায় ভূষিতত হয়েছেন অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ। তিনি ২০১৫ সালের পর দ্বিতীয়বারের মতো বর্ষসেরা টেস্ট ক্রিকেটার নির্বাচিত হন। টেস্ট ক্রিকেটে গত চার বছর ধরেই দুর্দান্ত পারফর্ম করছেন স্টিভেন স্মিথ। প্রত্যেক বছরেই সহস্রাধিক রান সংগ্রহ করেছেন। আইসিসির নির্ধারিত সময়ে স্টিভ স্মিথ ১৬টি টেস্ট ম্যাচে আটটি শতক এবং পাঁচটি অর্ধশতক হাঁকিয়ে  ৭৮.১২ ব্যাটিং গড়ে ১,৮৭৫ রান করেছেন। তিনি সব ধরনের কন্ডিশনেই রান পেয়েছেন। ২০১৭ সালে তার ছয়টি শতকের মধ্যে তিনটি ভারতের মাটিতে এবং তিনটি অ্যাশেজে।

আইসিসি বর্ষসেরা টেস্ট ক্রিকেটারের অ্যাওয়ার্ড জিতেছেন স্টিভেন স্মিথ; Image Source – Getty Images

২০১৭ সালে বর্ষসেরা টেস্ট ক্রিকেটারের অ্যাওয়ার্ড জেতার দৌড়ে ছিলেন বেশ কয়েকজন ক্রিকেটার। ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলি, নিউ জিল্যান্ডের অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন, জেমস অ্যান্ডারসন, কাগিসো রাবাদা এবং নাথান লায়নও দুর্দান্ত সময় কাটিয়েছিলেন। শেষপর্যন্ত স্টিভ স্মিথই বর্ষসেরা টেস্ট ক্রিকেটার নির্বাচিত হন। আইসিসি বর্ষসেরা টেস্ট ক্রিকেটারের অ্যাওয়ার্ড শেষ পাঁচবারের মধ্য চারবারই জিতেছে অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটাররা। ২০১৩ সালে মাইকেল ক্লার্ক, ২০১৪ সালে মিচেল জনসন এবং ২০১৫ ও ২০১৭ সালে স্টিভেন স্মিথ বর্ষসেরা টেস্ট ক্রিকেটারের অ্যাওয়ার্ড জেতেন।

আইসিসি বর্ষসেরা ওডিআই ক্রিকেটার

আইসিসি বর্ষসেরা ওডিআই ক্রিকেটারের অ্যাওয়ার্ড জিতেছেন ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি। নির্দিষ্ট সময়ে বিরাট কোহলি ৩১টি ওডিআইতে ৮২.৬৩ ব্যাটিং গড়ে সাতটি শতক এবং নয়টি অর্ধশতকের সাহায্যে ১,৮১৮ রান করেছেন।

আইসিসি বর্ষসেরা ওডিআই ক্রিকেটারের অ্যাওয়ার্ড জিতেছেন বিরাট কোহলি; Image Source – Eastern Eye

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন আফগানিস্তানের রশিদ খান এবং পাকিস্তানের হাসান আলী। রশিদ খান মাত্র ১৮ ইনিংসে ৫০ উইকেট এবং হাসান আলী ২১ ইনিংসে ৪৮ উইকেট শিকার করেছিলেন।

আইসিসি বর্ষসেরা উদীয়মান ক্রিকেটার

বর্ষসেরা উদীয়মান ক্রিকেটারের অ্যাওয়ার্ড জিতেছেন চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে দুর্দান্ত বোলিং করে ১৩ উইকেট শিকার করা হাসান আলী। অভিষেকের পর থেকেই বল হাতে দুর্দান্ত পারফরমেন্স দেখিয়ে যাচ্ছেন ২৩ বছর বয়সী ডানহাতি এই মিডিয়াম ফাস্ট বোলার।

আইসিসি বর্ষসেরা উদীয়মান ক্রিকেটারের পুরস্কার জিতেছেন হাসান আলী; Image Source – Getty Images

হাসান আলী ২১শে সেপ্টেম্বর ২০১৬ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত ২টি টেস্ট ম্যাচে ৬ উইকেট এবং ২১টি ওডিআইতে ৪৮ উইকেট শিকার করেছেন। বর্ষসেরা উদীয়মান ক্রিকেটার হওয়ার দৌড়ে তার স্বদেশী শাদাব খান এবং ভারতের চায়নাম্যান বোলার কুলদ্বীপ যাদবও এগিয়ে ছিলেন। ২০১৭ সালের মার্চে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পদার্পণ করা কুলদ্বীপ ইতিমধ্যে তিন ফরম্যাট মিলিয়ে শিকার করেছেন ৪৩ উইকেট।

আইসিসি বর্ষসেরা সহযোগী দেশের ক্রিকেটার

আফগানিস্তানের বিস্ময় জাগানো লেগ স্পিনার রশিদ খান বর্তমানে বিশ্বসেরা স্পিনারদের একজন। বিভিন্ন দেশের ফ্রাঞ্চাইজিভিত্তিক টুর্নামেন্টগুলোতে তাকে নিয়ে রীতিমতো কাড়াকাড়ি চলছে। ২১শে সেপ্টেম্বর ২০১৬ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত ওডিআই এবং আন্তর্জাতিক টি-টুয়েন্টি ক্রিকেটে সবচেয়ে বেশি উইকেট শিকার করেছেন।

আইসিসি সহযোগী দেশের সেরা ক্রিকেটারের অ্যাওয়ার্ড জিতেছেন রশিদ খান; Image Source – International Cricket Council

ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ১৮ রানের বিনিময়ে ৭ উইকেট শিকার করে ঐতিহাসিক জয় এনে দিয়েছিলেন রশিদ খান। আইসিসির নির্দিষ্ট সময়ে ওডিআইতে ১৮ ইনিংসে ১১.২০ বোলিং গড়ে ৫০ উইকেট এবং ১৩টি টি-টুয়েন্টতে ৯.৮৬ বোলিং গড়ে ২৩ উইকেট শিকার করেছেন। সহযোগী দেশের মধ্যে রশিদ খানকে টপকানোর মতো পারফরমেন্স আর কোনো ক্রিকেটার দেখাতে পারেনি। স্কটল্যান্ডের কাইল কোয়েৎজার এবং আয়ারল্যান্ডের তারকা ব্যাটসম্যান উইলিয়াম পোর্টারফিল্ড ব্যাট হাতে ভালো সময় কাটালেও তা রশিদ খানকে টপকানোর মতো যথেষ্ট ছিলো না।

আইসিসি বর্ষসেরা আন্তর্জাতিক টিটুয়েন্টি পারফরমেন্স

বর্ষসেরা আন্তর্জাতিক টি-টুয়েন্টি পারফরমেন্সের অ্যাওয়ার্ড জিতেছেন ভারতের লেগ স্পিনার যুযবেন্দ্র চাহাল। তিনি ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ২৫ রান খরচায় ৬ উইকেট শিকার করে এই অ্যাওয়ার্ড জিতে নেন।

বর্ষসেরা টি-টুয়েন্টি পারফরমেন্সের অ্যাওয়ার্ড জিতেছেন যুযবেন্দ্র চাহাল; Image Source – BCCI

এই অ্যাওয়ার্ড জিততে তিনি পেছনে ফেলেছেন রশিদ খান, এভিন লুইস, আসেলা গুনারত্নে এবং রোহিত শর্মাকে। রশিদ খান আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে দুই ওভারে মাত্র তিন রান খরচায় পাঁচ উইকেট শিকার করে বর্ষসেরা টি-টুয়েন্টি পারফরমেন্সের সংক্ষিপ্ত তালিকায় জায়গা করে নিয়েছিলেন। এছাড়া এভিন লুইস ভারতের বিপক্ষে ৬২ বলে অপরাজিত ১২৫* রানের ইনিংস। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আসেলা গুনারত্নে ম্যাচজয়ী ৮৪* রানের ইনিংস এবং শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে রোহিত শর্মার ৪৩ বলে ১১৮ রানের ইনিংসটিও সংক্ষিপ্ত তালিকায় জায়গা করে নিয়েছিলো। আইসিসি বর্ষসেরা টেস্ট আম্পায়ারের অ্যাওয়ার্ড জিতেছেন দক্ষিণ আফ্রিকার মারাইস এরাসমাস। টানা দ্বিতীয়বার এই অ্যাওয়ার্ড জেতেন তিনি। এরাসমাস ২০১০ সালে আইসিসির এলিট প্লানে জায়গা করে নেন। এখন পর্যন্ত তিনি ৪৭টি টেস্ট, ৭৪টি ওডিআই এবং ২৬টি টি-টুয়েন্টিতে আম্পায়ারের দায়িত্ব পালন করেছেন।

আইসিসি বর্ষসেরা আম্পায়ারের অ্যাওয়ার্ড জিতেছেন মারাইস এরাসমাস; Image Source – Zimbio

আইসিসি স্পিরিট অফ ক্রিকেট অ্যাওয়ার্ড জিতেছেন ইংল্যান্ডের নারী ক্রিকেটার আনিয়া শ্রুবসল। ভারতকে হারিয়ে পাকিস্তানের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জয়ের মুহূর্ত আইসিসি ফ্যানস মোমেন্ট অফ দ্য ইয়ার নির্বাচিত হয়েছে।

আইসিসি বর্ষসেরা টেস্ট দল

বিরাট কোহলিকে অধিনায়ক নির্বাচিত করে বর্ষসেরা টেস্ট একাদশ সাজিয়েছে আইসিসি। ব্যাটে বলে দুর্দান্ত মৌসুম কাটানো সাকিব আল হাসান আইসিসির বর্ষসেরা টেস্ট একাদশে জায়গা পাননি। একাদশে দক্ষিণ আফ্রিকা, অস্ট্রেলিয়া এবং ভারতের তিনজন করে ক্রিকেটার জায়গা করে নিয়েছেন।

১. ডেন এলগার (দক্ষিণ আফ্রিকা)
২. ডেভিড ওয়ার্নার (অস্ট্রেলিয়া)
৩. বিরাট কোহলি – অধিনায়ক (ভারত)
৪. স্টিভেন স্মিথ (অস্ট্রেলিয়া)
৫. চেতেশ্বর পূজারা (ভারত)
৬. বেন স্টোকস (ইংল্যান্ড)
৭. কুইন্টন ডি কক- উইকেটরক্ষক (দক্ষিণ আফ্রিকা)
৮. রবীচন্দ্রন আশ্বিন (ভারত)
৯. মিচেল স্টার্ক (অস্ট্রেলিয়া)
১০. কাগিসো রাবাদা (দক্ষিণ আফ্রিকা)
১১. জেমস অ্যান্ডারসন (ইংল্যান্ড)

আইসিসি বর্ষসেরা ওডিআই একাদশ

বর্ষসেরা ওডিআই একাদশেরও অধিনায়ক নির্বাচিত করা হয় বিরাট কোহলিকে। ভারতের তিনজন এবং দক্ষিণ আফ্রিকার ও পাকিস্তানের দুজন করে ক্রিকেটার আইসিসির বর্ষসেরা ওডিআই একাদশে জায়গা পেয়েছেন।

১. ডেভিড ওয়ার্নার (অস্ট্রেলিয়া)
২. রোহিত শর্মা (ভারত)
৩. বিরাট কোহলি- অধিনায়ক (ভারত)
৪. বাবর আজম (পাকিস্তান)
৫. আব্রাহাম বেঞ্জামিন ডি ভিলিয়ার্স (দক্ষিণ আফ্রিকা)
৬. কুইন্টন ডি কক- উইকেটরক্ষক (দক্ষিণ আফ্রিকা)
৭. বেন স্টোকস (ইংল্যান্ড)
৮. ট্রেন্ট বোল্ট (নিউ জিল্যান্ড)
৯. হাসান আলী (পাকিস্তান)
১০. রশিদ খান (আফগানিস্তান)
১১. জাসপ্রিত বুমরাহ (ভারত)

ফিচার ইমেজ – Cricket.com.au

Related Articles