চালু হয়েছে চতুর্থ প্রজন্মের মোবাইল নেটওয়ার্ক! তবে হ্যাঁ, এই নেটওয়ার্ক ব্যবহার করতে তাইলে শুধু সিমকার্ড থাকলেই তো চলবে না, সাথে লাগবে একটি ফোর-জি নেটওয়ার্ক সমর্থিত স্মার্টফোন।

পুঁজিবাদী দুনিয়ায় যেমন ৫ হাজার টাকার স্মার্টফোন আছে, ঠিক তেমনি আছে লাখ টাকার স্মার্টফোন। কিন্তু সাধ থাকলেই সবার কি সাধ্য থাকে? আমরা অনেকেই চাই আমাদের বাজেটের স্মার্টফোনটিতে থাকুক সব ধরনের সুবিধা। সম্প্রতি আসা ফোর-জি নেটওয়ার্কের পরিপ্রেক্ষিতে আজ আলোচনা করা হলো ফোর-জি সমর্থিত সাতটি বাজেটবান্ধব অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন সম্পর্কে। বলে রাখা ভালো, এখানে কমপক্ষে দুই গিগাবাইট র‍্যাম এবং ৮ মেগাপিক্সেল রিয়ার ক্যামেরাকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে।

১) শাওমি রেডমি ৪এ

২০১৬ সালের নভেম্বরে শাওমির পক্ষ থেকে বাজারে আনা হয়েছিল রেডমি ৪এ। কোয়ালকম স্নাপড্রাগন ৪২৫ চিপসেট এবং আড্রিনো ৩০৫ জিপিইউ দিয়ে তৈরি এই স্মার্টফোনটিতে আছে ৫ ইঞ্চির ৭২০পি আইপিএস পর্দা, ব্যাটারি ব্যাকআপ হিসেবে আছে ৩১২০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার। ১৩ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরার সাথে ৫ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা আছে ফোনটিতে। উভয় ক্যামেরা ২.২ অ্যাপাচারবিশিষ্ট। হাইব্রিড সিমস্লটের ৩২ জিবি স্টোরেজের এই ফোনে ২৫৬ জিবি পর্যন্ত মেমরি কার্ড ব্যবহারের সুবিধা দেয়া হয়েছে। এছাড়া জাইরোস্কোপ, প্রক্সিমিটি, কম্পাস এবং আক্সেলেরোমিটার সেন্সর আছে এই ফোনে। আন্ড্রয়েড ৬.০ এর উপরে মি ইউআই (MIUI 8.0) দেয়া হয়েছিল এই ফোনে যা আপডটযোগ্য। বাংলাদেশের বাজারে ২ গিগাবাইট র‍্যামের এই স্মার্টফোনটির আনুষ্ঠানিক মূল্য ৯,৯৯০ টাকা। ফোনটি পাওয়া যাচ্ছে গোল্ড এবং রোজগোল্ড রঙে।

শাওমি রেডমি ৪এ; source: e-doctor.ie

২) হুয়াওয়ে ওয়াই৫

চাইনিজ স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ের তরফ থেকে ২০১৭ সালের জুন মাসে বাজারে আনা হয়েছে হুয়াওয়ে ওয়াই৫। মালি টি-৭২০এমপি২ জিপিইউ’র সাথে এই ফোনটিতে ব্যবহার করা হয়েছে মিডিয়াটেক এমটি৬৭৩৭টি প্রসেসর। ৫ ইঞ্চির ৭২০পি আইপিএস পর্দা দেয়া হয়েছে স্মার্টফোনটিতে। ব্যাটারি ব্যাকআপ হিসেবে দেয়া আছে ৩০০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার। ২.০ অ্যাপাচারবিশিষ্ট ১৩ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরার সাথে ৫ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা আছে ফোনটিতে। দুটি ক্যামেরায়ই আছে ফ্লাশলাইট। ১৬ গিগাবাইট রমের এই ফোনে ১২৮ জিবি পর্যন্ত মেমরি কার্ড ব্যবহারের সুযোগ রাখা হয়েছে। প্রক্সিমিটি, কম্পাস এবং আক্সেলেরোমিটার সেন্সর রয়েছে এই স্মার্টফোনটিতে। আন্ড্রয়েড ৬.০ এবং ২ গিগাবাইট র‍্যামের এই ফোনটি গোল্ড, পিঙ্ক, নীল, সাদা এবং গ্রে রঙে বাংলাদেশের বাজারে পাওয়া যাচ্ছে ৯,৯৯০ টাকায়।

হুয়াওয়ে ওয়াই৫; source: newwalkntalk.com

৩) সিম্ফনি আইনোভা

একদমই নতুন মডেলের এই স্মার্টফোনটি দেশীয় মোবাইল প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান সিম্ফনি বাজারে ছেড়েছে ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে। মালি টি-৭২০ জিপিইউ’র সাথে এই ফোনটিতে ব্যবহার করা হয়েছে কোয়াডকোর প্রসেসর। ৫ ইঞ্চির ৭২০পি আইপিএস পর্দা দেয়া হয়েছে স্মার্টফোনটিতে। ব্যাটারি ব্যাকআপ হিসেবে দেয়া আছে ২৯০০ মিলিঅ্যাম্পায়ার। ২.২ অ্যাপাচারের ১৩ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরাটি একটি স্যামসাং সেন্সর, সাথে আছে ফেইস বিউটি, ব্যুকে ও ফিসআই মোড। ৫ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা আছে ফোনটিতে। ১৬ গিগাবাইট রমের এই ফোনে ৬৪ জিবি পর্যন্ত মেমরি কার্ড ব্যবহারের সুযোগ রাখা হয়েছে। অ্যান্ড্রয়েড ৭ ওএস’এর এই ফোনটির বিশেষ আকর্ষণ দুটি স্পিকার। প্রক্সিমিটি, লাইট এবং জি সেন্সর রয়েছে এই স্মার্টফোনটিতে। একইসাথে দুটি সিমকার্ড ব্যাবহারের সুবিধা আছে এই স্মার্টফোনে। ২ গিগাবাইট র‍্যামের এই ফোনটি দেশের বাজারে পাওয়া যাচ্ছে ৮,৩৯০ টাকায়।

সিম্ফনি আইনোভা; source: youtube.com

৪) সিম্ফনি আর১০০

দেশীয় মোবাইল প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান সিম্ফনি থেকে ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে বাজারে আনা হয় সিম্ফনি আর১০০ সিরিজের স্মার্টফোনটি। ফোনটিতে আছে মালি টি-৭২০ সিরিজের জিপিইউ এবং প্রসেসর হিসেবে কোয়াডকোর প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। এই স্মার্টফোনটিতে ১৩ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরা এবং সেলফি ধারণের জন্য একটি ৫ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা রয়েছে। সামনের ক্যামেরায় দেয়া আছে একটি সেলফি ফ্ল্যাশলাইট। ৫ ইঞ্চির আইপিএস ৭২০পি পর্দার সাথে ১৬ গিগাবাইট ইন্টারনাল রম পাওয়া যাবে এই ফোনটিতে। জি সেন্সরসহ লাইট, হল এবং ফিঙ্গার প্রিন্ট সেন্সর ব্যবহার করা হয়েছে এই ফোনে। ফোনটির ব্যাটারি ব্যাকআপ বেশ ভালোই, ৪০০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার। এছাড়া সর্বোচ্চ ৬৪ গিগাবাইট বাড়তি মেমরি কার্ড ব্যবহারের সুবিধা দেয়া হয়েছে এই ফোনটিতে। অ্যান্ড্রয়েড ৬.০’ এর অপেক্ষাকৃত পুরনো মডেলের ফোনটি দেশের বাজারে পাওয়া যাচ্ছে ২ ও ৩ গিগাবাইট র‍্যামের ভার্সনে, দাম যথাক্রমে ৯,৯৯০ ও ১১,৯৯০ টাকা।

সিম্ফনি আর১০০; source: androidmobileprice.com

৫) ওয়াল্টন প্রিমো আরএইচ৩

আরেক দেশি মোবাইল প্রতিষ্ঠান ওয়াল্টন থেকে জানুয়ারি, ২০১৮’তে বাজারে আনা হয়েছে প্রিমো আরএইচ৩। মালি ৪০০ জিপিইউ এবং কোয়াডকোর প্রসেসর দিয়ে তৈরি এই স্মার্টফোনটিতে আছে ৫ ইঞ্চির ২.৫ ডি কার্ভড ৭২০পি অন-সেল পর্দা, ব্যাটারি ব্যাকআপ হিসেবে আছে ২৬০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার। ফোনটিতে আছে ৮ মেগাপিক্সেলের ২.০ অ্যাপাচারবিশিষ্ট বিএসআই রিয়ার ক্যামেরা আছে। ৮ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরায় আছে এইচডিআর, ফেইসবিউটি মোড। দুই সিমস্লটের এই ফোনে ১৬ জিবি স্টোরেজ রয়েছে। এছাড়া ১২৮ জিবি পর্যন্ত মেমরি কার্ড ব্যবহারের সুবিধা দেয়া হয়েছে। প্রক্সিমিটি, গ্রাভিটি, ফিঙ্গার, আক্সেলেরোমিটার ইত্যাদি সেন্সর তো আছেই। ফোনটিতে অ্যান্ড্রয়েড ৭.০ সহ দুটি সিমেই ফোর-জি ব্যবহারের সুবিধা আছে। বাংলাদেশের বাজারে ২ গিগাবাইট র‍্যামের এই স্মার্টফোনটির মূল্য ৯,৯৯০ টাকা।

ওয়াল্টন প্রিমো আরএইচ৩; source: mobilemaya.com

৬) মাইক্রোম্যাক্স ক্যানভাস ১

২০১৭ সালের জুলাই মাসে মাইক্রোম্যাক্স কোম্পানি থেকে বাজারে আনা হয়েছে ক্যানভাস ১। মালি টি-৭২০ জিপিইউ’র সাথে এই ফোনটিতে ব্যবহার করা হয়েছে মিডিয়াটেক এমটি৬৭৩৭টি প্রসেসর। ৫ ইঞ্চির ৭২০পি আইপিএস পর্দা দেয়া হয়েছে স্মার্টফোনটিতে। ব্যাটারি ব্যাকআপ হিসেবে আছে ২৫০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি। ২.২ অ্যাপাচারবিশিষ্ট ৮ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরায় আছে ১.৪ মাইক্রনপিক্সেল। ৫ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরাটি ওয়াইড এঙ্গেল। ১৬ গিগাবাইট রমের এই ফোনে ৬৪ জিবি পর্যন্ত মেমোরি কার্ড ব্যবহারের সুযোগ রাখা হয়েছে। প্রক্সিমিটি, আক্সেলেরোমিটার সেন্সর রয়েছে এই স্মার্টফোনটিতে। একইসাথে দুই সিমকার্ড ব্যবহার করা যাবে এই ফোনটিতে। অ্যান্ড্রয়েড ৭.০ এবং ২ গিগাবাইট র‍্যামের এই স্মার্টফোনটি দেশের বাজারে পাওয়া যাচ্ছে ৭,৫৯৯ টাকায়।

মাইক্রোম্যাক্স ক্যানভাস ১; source; telecomtalk.info

৭) মাইক্রোম্যাক্স ক্যানভাস ইউনাইট ৪প্রো

মাইক্রোম্যাক্সের তরফ থেকে ২০১৬ সালের জুনে বাজারে আনা হয়েছিল ক্যানভাস ইউনাইট ৪প্রো। অপেক্ষাকৃত পুরনো মডেলের এই স্মার্টফোনটিতে ব্যবহার করা হয়েছে স্প্রেডটার্ম এসসি ৯৮৩২ কোয়াডকোর প্রসেসর। ফোনটিতে আছে ৮ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরা এবং ফ্রন্ট ফ্ল্যাশলাইটসহ ৫ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা। ব্যাটারি ব্যাকআপ ফোনটির একটি আকর্ষণীয় দিক। এতে ব্যবহার করা হয়েছে ৩৯০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি, যা প্রয়োজনে খোলা যায়। ৫ ইঞ্চির ৭২০পি আইপিএস পর্দা দেয়া হয়েছে এই ফোনে। প্রক্সিমিটি, আক্সেলেরোমিটার, গ্রাভিটি, লাইট, হল এবং ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর রয়েছে এই স্মার্টফোনটিতে। একইসাথে দুই সিমকার্ড ব্যবহারের সুবিধাসহ ফোনটিতে দেয়া আছে ৩২ গিগাবাইট রম। এতে বাড়তি মেমরি কার্ডের মাধ্যমে ৩২ গিগাবাইট পর্যন্ত স্টোরেজ বাড়ানোর সুবিধা আছে। অ্যান্ড্রয়েড ৫.১ এর এই স্মার্টফোনটির বাজারমূল্য ৯,৫৫০ টাকা।

মাইক্রোম্যাক্স ক্যানভাস ইউনাইট ৪প্রো; source: knowreviewtip.com

ফিচার ইমেজ- Gear Best