• নিজের প্রথম বলেই প্রতিপক্ষের সেরা ব্যাটসম্যান বাবর আজমকে ফেরান মুস্তাফিজুর রহমান।
  • চার ওভারে একটি মেইডেন ওভার করে ২২ রান খরচায় এক উইকেট শিকার করেন মুস্তাফিজ।
  • ব্যাটসম্যানদের ব্যাটিং ব্যর্থতায় টানা তৃতীয় পরাজয় লাহোর কালান্দার্সের।

গতকাল রাতে পিএসএলে লাহোর কালান্দার্সের বিপক্ষে টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় করাচি কিংস। করাচির বিদেশি ওপেনার জো ডেনলি শুরু থেকেই লাহোরের বোলারদের উপর আক্রমণ চালান। মাত্র ১৪ বলে পাঁচটি চার এবং একটি ছয়ের মারে ২৮ রান করে চতুর্থ ওভারের শেষ বলে ইয়াসির শাহের শিকারে পরিণত হয়ে সাজঘরে ফেরেন।

৫ম ওভারে বোলিং আক্রমণে এসে প্রথম বলেই বাবর আজমকে খালি হাতে ফেরান মুস্তাফিজ। নিজের প্রথম ওভারে কোনো রান দেননি তিনি। পরের ওভারে আরেক ওপেনার খুররাম মনজুরকে আউট করেন নারিন। একপর্যায়ে করাচির রান ছিলো বিনা উইকেটে ৩৬। সেখান থেকে কোনো রান যোগ না করেই তিন উইকেট হারায় আফ্রিদির দল।

Source: PSL

ইয়াসির শাহ, সুনীল নারিন এবং মুস্তাফিজুর রহমানের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে করাচি কিংসকে চাপে রেখেছিলো লাহোর। চাপের মুখে রবি বোপারা ৩৪ বলে দুটি চার এবং দুটি ছয়ের মারে ৫০* রানের অপরাজিত ইনিংস খেলে দলকে ১৫৯ রানের সংগ্রহ এনে দেন। বোপারা লাহোরের দুই পাকিস্তানি বোলার শাহেন শাহ আফ্রিদি এবং সোহেল খানকে ধন্যবাদ জানাতেই পারেন। কারণ তাদের অনিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে সাত উইকেটে ১৫৯ রান জমা করে করাচি কিংস। সোহেল খান চার ওভারে ৪৫ রান এবং শাহেন শাহ আফ্রিদি তিন ওভারে ৩৯ রান খরচ করেন।

করাচির দেওয়া ১৬০ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে দলীয় এক রানের মাথায় রানের খাতা খোলার আগে সাজঘরে ফেরেন সুনীল নারিন। শুরুতে উইকেট হারালেও নিজের স্বভাবসুলভ ব্যাটিং পরিবর্তন করেননি অধিনায়ক ব্রেন্ডন ম্যাককালাম। মাত্র ৩০ বলে পাঁচটি চার এবং দুটি ছয়ের মারে ৪৪ রান করেন তিনি। ম্যাককালাম আউট হওয়ার আবারও ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে ২৭ রানে পরাজিত হয় মুস্তাফিজের লাহোর।

একপর্যায়ে ৬.৩ ওভারে লাহোরের স্কোরবোর্ডে এক উইকেটে ৭০ রান ছিলো। সেখান থেকে মাত্র ১৩২ রানে গুটিয়ে গিয়ে টানা তৃতীয় হারের স্বাদ পায় লাহোর। করাচির হয়ে শহিদ আফ্রিদি এবং উসমান খান তিনটি করে উইকেট শিকার করেন।

লাহোর কালান্দার্স পিএসএলে তিনটি ম্যাচেই পরাজিত হয় মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায়। প্রথম ম্যাচে মুলতান সুলতানসের দেওয়া ১৮০ রানে লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ১৪.৫ ওভার শেষে লাহোরের সংগ্রহ ছিলো তিন উইকেটে ১৩২ রান। সেখান থেকে মাত্র চার রান যোগ করতেই শেষ সাত উইকেট হারায় তারা।

নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে কোয়েটা গ্ল্যাডিয়েটর্সের বিপক্ষে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে উদ্বোধনী উইকেট জুটিতে মাত্র ৩.৩ ওভারে ৪৬ রান যোগ করেছিলেন নারিন এবং ম্যাককালাম। ঐ ম্যাচেও মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানরা হতাশ করেন। ৪.৪ ওভারে এক উইকেটে ৬০ রান থেকে ২০ ওভার শেষে নয় উইকেটে মাত্র ১১৯ রান তুলতে সক্ষম হয় লাহোর কালান্দার্স।

Featured photo: PSL