• এলন মাস্কের কোম্পানি টেসলা দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়ায় ৫০ হাজার বাসায় সৌর নেটওয়ার্কের মাধ্যমে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ‘ভার্চুয়াল পাওয়ার প্ল্যান্ট‘ তৈরি করতে যাচ্ছে।
  • গত রবিবারে দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়ার প্রাদেশিক প্রধান জে ওয়েদারিল এ পরিকল্পনার কথা জানান।

ভার্চুয়াল পাওয়ার প্ল্যান্টের মডেল; Source: antinuclear.net

প্রদেশটির রাজধানী অ্যাডিলেইডে এক টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, “আমরা বিশ্বের সবচেয়ে বড় ব্যাটারি ও সৌর থার্মাল প্ল্যান্টের মাধ্যমে নবায়নযোগ্য শক্তিতে বিশ্বে সবচেয়ে এগিয়ে আছি এবং এখন সবচেয়ে বড় ভার্চুয়াল পাওয়ার প্ল্যান্টের মাধ্যমেও এগিয়ে থাকবো। এর আয়তনের কারণেই এটি সফল হতে যাচ্ছে।” 

 সরকারী ওয়েবসাইটে জানানো হয়েছে, এই প্রকল্পটি জনসাধারণের ১,১০০টি বাসা-বাড়িতে পরীক্ষামূলকভাবে শুরু হবে। এ প্রকল্পের আওতায় থাকা প্রতিটি বাড়িতে ৫ কিলোওয়াট সৌর প্যানেল সিস্টেম ও ‘টেসলা পাওয়ারওয়াল টু ব্যাটারি’ যুক্ত করা হবে। এতে সেখানকার বাসিন্দাদের কোনো খরচ করতে হবে না, পুরো খরচই অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিক্রয়ের মাধ্যমে বহন করা হবে। বাড়িগুলো পরস্পরের সাথে সংযুক্ত পাওয়ার প্ল্যান্ট নেটওয়ার্কে পরিণত হবে।

গত বছর প্রদেশটিতে পৃথিবীর সর্ববৃহৎ লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি স্থাপন করায় এলন মাস্ক সেখানে বেশ প্রভাব বিস্তার করেছেন। গত বছর স্থাপিত এ টেসলা পাওয়ারপ্যাক বিদ্যুৎ না থাকলে ৮ হাজার বাড়িতে ২৪ ঘণ্টা অথবা ৩০ হাজার বাড়িতে এক ঘণ্টার জন্য বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে পারে।

বাড়ির ছাদে বসানো সৌর প্যানেল; Source: GadgetGuy

তবে ভার্চুয়াল পাওয়ার প্ল্যান্টটি শুধু জরুরি অবস্থার জন্য না, প্রতিদিন ব্যবহারের জন্য। কেননা প্রদেশটি ফসিল জ্বালানি থেকে সরে গিয়ে আরও টেকসই বৈদ্যুতিক উৎসের দিকে যেতে চাচ্ছে। প্রকল্পের আওতাধীন বাড়িতে সংযোগের কাজ ইতোমধ্যেই শুরু হয়ে গেছে। আরও ২৪ হাজার বাড়িতে সংযোগ স্থাপনের জন্য পদ্ধতিটি প্রস্তুত। এরপরে দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়ার সব বাড়িতেই এই কার্যক্রম চালু করা হবে। সরকারের মতে, এতে অংশগ্রহণের ফলে বিদ্যুৎ বিল ৩০ শতাংশ কমে আসবে।

৫০ হাজার বাসা জুড়ে ভার্চুয়াল পাওয়ার প্ল্যান্টটির ২৫০ মেগাওয়াট সৌর শক্তিসম্পন্ন হবে এবং ব্যাটারিতে সঞ্চিত থাকবে ৬৫০ মেগাওয়াট। দক্ষিণ আফ্রিকার বাসিন্দারা এই কার্যক্রমে যোগদান করার জন্য নিবন্ধন করতে পারবেন।

ফিচার ইমেজ: firstpost.com