বড়দিনের সন্ত্রাসী হামলা থেকে রক্ষা পেল যুক্তরাষ্ট্র

বড়দিনের ছুটিতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সান ফ্রান্সিসকোতে সন্ত্রাসী হামলার পরিকল্পনার অভিযোগে এক ব্যক্তিকে আটক করেছে এফবিআই। গতকাল শুক্রবার এভারিট অ্যারন জেমিসন নামের ঐ যুবককে তার বাসা থেকে আটক করা হয়। গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই (ফেডারেল ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন) জানিয়েছে, তার পরিকল্পনা ছিল শহরের জনপ্রিয় পর্যটন এলাকা ‘পায়ার ৩৯’ এ আত্মঘাতী হামলার।

চলুন দেখে নেওয়া যাক কে এই জেমিসন এবং কিভাবে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

কে এই জেমিসন?

এভারিট অ্যারন জেমিসনের প্রোফাইল পিকচার; Source: Facebook

এভারিট অ্যারন জেমিসন একজন সাবেক মেরিন সদস্য। তার বয়স ২৫ বছর। ২০০৯ সালে সে মেরিন কোরে যোগ দিয়েছিল, কিন্তু পরবর্তীতে তাকে তার অ্যাজমার তথ্য গোপন করার অভিযোগে বহিষ্কার করা হয়। বর্তমানে সে একজন ট্রাক ড্রাইভার। গত দুই বছর আগে সে স্থানীয় একটি ইসলামিক সেন্টারে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছিল।

কী পরিকল্পনা ছিল তার?

  • এফবিআই জানিয়েছে, জেমিসনের পরিকল্পনা ছিল বড়দিনের ছুটিতে সে টুরিস্টদের উপর সন্ত্রাসী হামলা করবে।
  • হামলা করার জন্য সে ‘পায়ার ৩৯’ এলাকাটি বেছে নিয়েছিল, কারণ এলাকাটি টুরিস্টদের কাছে অত্যন্ত প্রিয় হওয়ায় এবং এখানে অনেক রেস্টুরেন্ট, দোকানপাট এবং হোটেল থাকায় সর্বক্ষণ এটি মানুষের ভিড়ে পরিপূর্ণ থাকে।
  • তার বাসা থেকে দুটি রাইফেল, একটি ৯ মিলিমিটার হ্যান্ডগান, একটি উইল এবং একটি দায় স্বীকারের চিঠি উদ্ধার করা হয়েছে।
  • চিঠিতে আমেরিকানদেরকে উদ্দেশ্য করে লেখা ছিল, “তোমরা এই আক্রমণ নিজেরাই নিজেদের উপর টেনে এনেছ। তোমরা ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ইহুদীদের হাতে কুদস (জেরুজালেম) তুলে দিতে দিয়েছ।”

কীভাবে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে?

পায়ার ৩৯; Source: Eric Risberg @ AP

  • গত সেপ্টেম্বর মাসে জেমিসন প্রথম এফবিআই-এর নজরে পড়ে। অনলাইনে তাকে চরমপন্থী জিহাদী বার্তা শেয়ার করতে দেখে এবং জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট (আইএস) এর প্রতি তার সমর্থন লক্ষ্য করে একজনের করা অভিযোগের প্রেক্ষিতে এফবিআই তার উপর নজরদারি শুরু করে। তাদের একজন এজেন্ট আইএস নেতা সেজে জেমিসনের সাথে যোগাযোগ শুরু করে।
  • জেমিসন ইন্টারনেটে গত অক্টোবরে হ্যালোইনের সময় নিউইয়র্কে সংঘটিত আইএসের ট্রাক হামলার প্রতি সমর্থন জানিয়েছিল। ঐ হামলায় ৮ জন নিহত হয়েছিল। এফবিআই এজেন্টকে সে জানিয়েছিল, “আমি খুশি যে, আমরা মুসলমানরাও এখন পাল্টা আঘাত করতে পারছি।”
  • এফবিআই জানায়, জেমিসন হামলাটি করার জন্য অস্ত্র কেনার ব্যাপারে এজেন্টের সাহায্য চেয়েছিল। সে এম-১৬ বা একে-৪৭ রাইফেল, গুলি, বিস্ফোরক, টাইমার, রিমোট ডেটোনেটর প্রভৃতি কিনতে চেয়েছিল। তার ইচ্ছে ছিল একটি পাইপ বোমা তৈরি করে ঘটনাস্থলে বিস্ফোরণ ঘটাবে এবং এরপর গুলি করবে। সে এজেন্টকে জানিয়েছিল, তার কোনো প্রস্থান পরিকল্পনার প্রয়োজন নেই। কারণ সে মৃত্যুবরণ করতে প্রস্তুত আছে।
  • কিন্তু পরবর্তীতে গত ১৮ ডিসেম্বর জেমিসন তার পরিকল্পনা পরিবর্তন করে। সে এজেন্টকে জানায়, সে হয়তো হামলাটি করতে পারবে না। এরপরই গতকাল তাকে তার বাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।
  • তার বিরুদ্ধে বিদেশী সন্ত্রাসী সংগঠনকে সাহায্য করার প্রচেষ্টার অভিযোগ গঠন করা হয়েছে। এফবিআই জানায়, গ্রেপ্তারের সময় সে আইএসের প্রতি সমর্থন জানিয়েছিল এবং আক্রমণটি সংঘটিত করতে পারলে সে খুশি হতো বলে মন্তব্য করেছিল। কিন্তু আদালতে জেমিসন তার সম্পৃক্ততার কথা অস্বীকার করেছে। বিচারে অপরধী প্রমাণিত হলে তার ২০ বছর পর্যন্ত কারাদন্ড হতে পারে।

ফিচার ইমেজ- Eric Risberg @ AP

Related Articles