প্রেসিডেন্ট ইয়ামিনকে অভিশংসনের চেষ্টা প্রতিহত করবে মালদ্বীপ সরকার

  • মালদ্বীপ সরকার প্রেসিডেন্ট আব্দুল্লাহ ইয়ামিনকে সর্বোচ্চ আদালত কর্তৃক অভিশংসনের সকল চেষ্টাই প্রতিহত করবে বলে জানায় দেশটির অ্যাটর্নি জেনারেল।
  • প্রেসিডেন্ট ইয়ামিনের সর্বোচ্চ আদালত কর্তৃক অভিশংসনের সম্ভাবনার কারণে গত রবিবার এ কথা জানান তিনি।
  • গত সপ্তাহে সর্বোচ্চ আদালতের দেওয়া বিরোধীদলীয় নেতাদের কারাগার থেকে মুক্তিদানের আদেশ অমান্য করায় তার অভিশংসনের আশংকা দেখা দেয়।

প্রেসিডেন্ট আব্দুল্লাহ ইয়ামিন; Source: DNA India

অ্যাটর্নি জেনারেল মোহাম্মদ অনিল জানান, সরকারের কাছে তথ্য এসেছে যে, সর্বোচ্চ আদালত দেশটির প্রেসিডেন্টকে অপসারণের প্রস্তুতি নিচ্ছে। কিন্তু এ ধরনের পদক্ষেপ অবৈধ এবং পুলিশ ও সেনাবাহিনীকে নির্দেশ দেওয়া আছে যেন এরকম কোনো আদেশ পালন না করে।

রাজধানী মালেতে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, “আমরা তথ্য পেয়েছি এমন কিছু ঘটতে পারে যার জাতীয় নিরাপত্তা সঙ্কটের মুখে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।” তিনি আরও বলেন, “তথ্যটির মতে সর্বোচ্চ আদালত প্রেসিডেন্ট অভিশংসন বা অপসারণের রুল জারি করতে পারে।” এ সম্মেলনে সামরিক বাহিনীর প্রধানেরাসহ নতুন পুলিশ প্রধানও উপস্থিত ছিলেন।

সর্বোচ্চ আদালত সাবেক প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ নাশিদ ও ৮ জন বিরোধীদলীয় নেতাদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদের অভিযোগ নাকচ করে দিলে বৃহস্পতিবার থেকে প্রেসিডেন্ট ইয়ামিন দুজন পুলিশ প্রধানকে অপসারিত করেছেন। পুলিশের মতে তারাও আদালতের এ ধরনের রুলকে প্ররোচনা দেবে।

কারাগারে প্রেরিত কিছু বিরোধীদলীয় নেতার মতে, তাদের কাছে প্রেসিডেন্ট ইয়ামিনের দুর্নীতির প্রমাণ রয়েছে। কিন্তু ইয়ামিন এ ধরনের সকল অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। আদালত সংসদ থেকে অপসারিত ১২ জন সদস্যকেও পুনর্বহাল করতে আদেশ দিয়েছে। তারা গত বছর ইয়ামিন শাসিত দল ত্যাগ করে। তাদেরকে পুনর্বহাল করলে ইয়ামিন আইনসভায় সংখ্যাধিক্য হারাবেন।

আন্দোলন করছে মালদ্বীপবাসীরা;  Source: WSB-TV

রাজনৈতিকভাবে নিরপেক্ষ সংসদের মহাসচিব আহমেদ মোহাম্মেদ জানান তিনি আদালতের রায় মেনে ১২ জনকে পুনর্বহাল করবেন। কিন্তু অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে গত রবিবার তিনি ব্যক্তিগত কারণ দর্শন করে পদত্যাগ করেন।

২০১৩ সালে ক্ষমতায় আসা ইয়ামিন আদালতের রায়ের প্রতি সম্মতি জানাতে আন্তর্জাতিক চাপের মুখে আছেন। এদিকে দেশটির শত শত জনগণ আদলতের রায়ের প্রতি সম্মতি জানিয়ে রাস্তায় আন্দোলনে নেমেছে। আন্দোলনের কারণে রবিবার মালেতে সরকারি কার্যালয়ের সামনে প্রায় ১০০ পুলিশ অবস্থান নেয়। অপরদিকে বিরোধীদলীয়দের আন্দোলনের স্থান রিপাবলিকান স্কোয়ারের সামনেও পুলিশের অবস্থান দেখা যায়।

এদিকে সম্মিলিত বিরোধীদলের এক বিবৃতিতে জানানো হয় তারা আশংকায় আছেন অপসারিত হওয়ার ভয়ে ইয়ামিন সামরিক বাহিনীকে ক্ষমতা গ্রহণের আদেশ দিতে পারেন।

ফিচার ইমেজ: CONSULATE OF THE MALDIVES IN THIRUVANANTHAPURAM, INDIA

Related Articles